রোজকার মতো প্রাতঃভ্রমণে বেরিয়েছিলেন সকলেই। যাওয়া আসার পথে অনেকের সাথেই প্রাত্যহিক অথবা দৈনিক আলাপও হয়। এ যেন প্রাতঃকালীন এক বৃহৎ পরিবার।

তেমনি ১০ বছর আগে একটি নির্মল সকালে ছন্দপতন হয় হঠাৎ একটি আওয়াজে। তারপরেই পথে পড়ে যায় একটি রক্তাক্ত প্রাণহীন নারী শরীর, ইনি আরতী সেনগুপ্ত।

আজ থেকে ঠিক ১০ বছর আগে ১১ই জানুয়ারী প্রাতঃভ্রমণে বেরিয়ে পুরসভার গাড়ির ধাক্কায় প্রাণ হারান আরতি দেবী। তার পর পেরিয়ে গেছে ১০টি বছর।এখনও ধরা পড়েনি সেই হত্যাকারী। প্রশাসনের খাতায় সে ফেরার।

সেই হত্যাকারীকে সঠিক শাস্তি দেওয়া ও টালা ঝিল পার্কের নাম আরতি সেনগুপ্ত স্মৃতি উদ্যান হিসাবে নামাঙ্কিত করতে ১০ জানুয়ারী জনসমাজ কল্যান সংঘ আয়োজন করে একটি আলোচনা সভার। উপস্থিত ছিলেন সমাজের সর্বস্তরের বিশিষ্ট জনেরা। ১০ বছর আগের সেই অভিশপ্ত সকালে অর্থাৎ ১১ জানুয়ারী সকালে একটি মৌণ মিছিল সংগঠিত করার পাশাপাশি বাচ্চাদের পঠন পাঠনের সামগ্রীও প্রদান করেন এই সংগঠন। প্রাতঃভ্রমণকারীদের হাতে তুলে দেন মাস্ক।

আরতি সেনগুপ্তের হত্যাকারীর অবিলম্বে শাস্তির দাবী জানিয়ে কলকাতার বিভিন্ন পার্কে যাতে কোনো ভাবেই কোনো গাড়ি প্রবেশ করতে না পারে, আর কোনো প্রাণ যেন অকালে না ঝড়ে যায় তার আহ্বান জানানো হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *