অন্যান্য

প্রয়াত তাপস পাল

প্রয়াত অভিনেতা তাপস পাল। মুম্বইয়ের একটি বেসরকারী হাসপাতালে মঙ্গলবার ভোররাতে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন এই জনপ্রিয় অভিনেতা। মৃত্যুকালে বয়স হয়েছিল ৬১। 28 জানুয়ারি মুম্বই গিয়েছিলেন। সেখান থেকে পয়লা ফেব্রুয়ারি মেয়ে সোহিনী পালের কাছে, মার্কিং যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার কথা ছিল । বিমান ধরার আগেই বুকে ব্যাথা অনুভব করেন। ভর্তি করা হয় হাসপাতালে । রাখা হয় ভেন্টিলেশনে। মাঝে চিকিত্সায় সামান্য সাড়া দিলেও সোমবার থেকে অবস্থার অবনতি শুরু হয়। মঙ্গলবার রাত 3টে 36 মিনিটে তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। শোকস্তদ্ধ শিল্পী মহল। ১৯৫৮ সালের ২৯ শে সেপ্টেম্বর হুগলির চন্দননগরে জন্ম। ছোটবেলা থেকেই অভিনয়ের প্রতি আগ্রহ। কলেজে পড়াকালীন নজরে পড়েন পরিচালক তরুণ মজুমদারের। মাত্র ২২ বছর বয়সে মুক্তি পায় প্রথম ছবি দাদার কীর্তি। এরপর আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে। একের পর এক হিট ছবি উপহার দিয়েছেন দর্শকদের। উল্লেখযোগ্য ছবি গুলির মধ্যে সাহেব, অনুরাগের ছোঁয়া, পারাবত প্রিয়া, ভালোবাসা ভালোবসা । সাহেব ছবির জন্য ফিল্ম ফেয়ার অ্যাওয়ার্ড পান ১৯৮১ সালে। বাংলার পাশাপাশি অভিনয় করেছেন হিন্দি ছবিতেও। মাধুরী দীক্ষিতের বিপরীতে অভিনয় করেছেন অবোধ ছবিতে। কৃষ্ণনগর লোকসভা থেকে তৃণমূলের লোকসভার সাংসদ ছিলেন তিনি।

শুভেচ্ছা বার্তা

ওয়েবডেস্ক,25 ডিসেম্বর: আজ বড়দিন, যিশু খ্রীষ্টের জন্মদিন, এই উপলক্ষে অল ইন্ডিয়া মাইনোরিটি ফোরামের চেয়ারম্যান তথা বিধায়ক ইদ্রিশ আলি সকলকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ।তিনি বলেন, বড়দিন ভালোভাবে কাটুক, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির প্রতীক মূখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি যতদিন থাকবেন ততদিন পশ্চিমবঙ্গের সমস্ত উৎসবই ভালোভাবে কাটবে।

আজ নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের (CAB)ব্যাপারে আলোচনা করা হলো তৃণমূল কংগ্রেসের লোকসভার সাংসদ তথা প্রবীণ নেতা প্রফেসর সৌগত রায় এর সঙ্গে । জামাআতে ইসলামী হিন্দের রাজ্য সভাপতি মাওলানা আব্দুর আব্দুর রফিক সাহেবের নেতৃত্বে জামাআতের এক প্রতিনিধি দল আজ লোকসভার সাংসদ প্রফেসর সৌগত রায়ের সঙ্গে দেখা করে, মূলত নাগরিকত্ব বিল নিয়ে তৃণমূলের অবস্থান সম্পর্কে জানতে চান জামাআতের রাজ্য সভাপতি আব্দুর রফিক সাহেব, তারই পরিপ্রেক্ষিতে সৌগত রায় জানান তৃণমূল কংগ্রেস নীতিগত ভাবে এই বিলের বিরোধী আমরা লোকসভা ও রাজ্যসভায় এই বিলের বিরোধিতা করবো । প্রতিনিধি দলে ছিলেন প্রাক্তন আমীরে হালকা রহমত আলী খান, রাজ্য পাবলিক রিলেশন সেক্রেটারি জনাব মুজাফফর আলী, সহকারী সুজাউদ্দিন আহমেদ, সহকারী দাওয়াহ সেক্রেটারি তাহেরউদ্দিন সাহেব প্রমুখ।

প্রতিক্রিয়ায় জামাআতে ইসলামী হিন্দ

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক, ৯নভেম্বর, কলকাতাঃ জামাআতে ইসলামী হিন্দ, পশ্চিমবঙ্গ তাদের রাজ্য সদর দপ্তরে এক সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করে। সংগঠনের রাজ্য সভাপতি আব্দুর রফিক সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, বাবরী মসজিদ সংক্রান্ত সুপ্রিম কোর্টের রায় ঘোষিত হয়েছে। রায়ে বিতর্কিত জমি রামলালাকে প্রদান করা হয়েছে ও মুসলিমদের জন্য পাঁচ একর জমি দিতে বলা হয়েছে। আমরা এই রায়কে সম্মান জানাই। কিন্তু এই রায়ে আমরা সন্তুষ্ট নই, মুসলিম পক্ষের সাথে Injustice করা হয়েছে। রায়ে এটা স্পষ্ট যে, মসজিদের কাঠামো, কোন মন্দির ভেঙ্গে তৈরী হয়নি এবং সেখানে নিয়মিত নামাজ পড়া হতো। তার পরেও তা রামলালাকে দিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত অনাকাঙ্খিত ও ন্যায়ের পরিপন্থি। যদিও রায়ের কিছু পয়েন্টস্ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ যা দেশের সংবিধানকে শক্তিশালী করে এবং তা Law and Order স্থীতিশীল রাখার ক্ষেত্রে সাহায্য করবে। আমরা রায়ের পরিপ্রেক্ষিতে রাজ্যের সকল জনসাধারণকে শান্তি ও সম্প্রীতি বজায় রাখার আবেদন জানাচ্ছি। মুসলিম ভাইদেরকে আবেদন জানাচ্ছি তারা যেন ধৈর্য্য ধরেন ও পরিনত বুদ্ধির পরিচয় দেন। পরিস্থিতি যাই হোক, কোন ভাবেই উত্তেজনার শিকার না হোন। বিরোধীদের প্ররোচনায় পা না দেন। তিনি বলেন, মধ্যস্থতাকারীদের সাথে আলোচনার সময় মুসলিমরা খোলা মনে অংশগ্রহণ করেছিল।
আজকের দিনে কেউ এটা বলতে পারবে না যে মুসলিম পক্ষ বাবরী মসজিদ মুকাদ্দামায় কোন ধরনের কমজোড়ী দেখিয়েছে।
দেশের বুদ্ধিজীবী, সমাজ কর্মী, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বদের বৃহৎ অংশ সত্য ও ন্যায়ের উপর আস্থা রাখেন। দেশের সিভিল সোসাইটি পরিস্থিতির উপর নজর রাখছেন এবং তারা জানেন কারা কেমন প্রকৃতির।

মোদি সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে রাস্তায় ট্রেড ইউনিয়ন কংগ্রেস

বৈশালী দে,5নভেম্বর,কলকাতা: জিনিসপত্রের অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধি ও গ্যাসের দাম বেড়ে যাওয়া সহ আরো অন্যান্য বিষয়কে কেন্দ্র করে বউবাজার মোড়ে ৫ নভেম্বর এক প্রতিবাদ সভা করেন ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল ট্রেড ইউনিয়ন কংগ্রেস।
এদিন তারা মাঝ রাস্তায় বালিশ-গদি বিছিয়ে প্রদিবাদ করেন এবং মোদি ও অমিত সাহের ছবি জ্বালিয়ে ‘মোদি ছাড়ো গদি’ শ্লোগান জানাতে থাকেন ।

আইএনটিইউসি সেবাদলের পশ্চিমবঙ্গ শাখা ও আইএনটিইউসি মধ্য কলকাতা শাখার পক্ষ থেকে জানানো দাবি গুলি হলো-
১. রাষ্ট্রয়ও সংস্থা গুলোতে বিলগ্নীকরণ বন্ধ করতে হবে।
২.রেলওয়ে, ব্যাংক বীমা ক্ষেত্রে বেসরকারিকরণ বন্ধ করতে হবে।
৩. প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে বেসরকারিকরণ বন্ধ করতে হবে।
৪.শ্রমিক বিরোধী লেবার কোড চালু করা যাবে না।
৫.অবিলম্বে বেকারত্বের হার কমিয়ে কর্মী নিয়োগ বাড়াতে হবে।
৬.ধর্মের নামে শ্রমিকদের বিভাজন করা চলবে না ।
৭.নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য কমাতে হবে।
৮.পেট্রোল, ডিজেলের দাম কমাতে হবে।
৯. রান্নার গ্যাসের দাম কমাতে হবে।
১০.অর্থনৈতিক অবস্থা ও শিল্প সংস্থার বৃদ্ধি করতে হবে।

আজকের এই প্রতিবাদ সভায় উপস্হিত ছিলেন প্রশান্ত দত্ত, সাগরিকা দাস, ধনঞ্জয় পাল, আশুতোষ চক্রবর্তী প্রমুখ।

শ্রদ্ধাঞ্জলি

শ্রীমতি বিনা রায়ের চতুর্থ মৃত্যুবার্ষিকীতে তার পরিবারের পক্ষ থেকে কলকাতার নিমতলা শ্মশানের পার্শ্ববর্তী ভূতনাথ বাবার মন্দির এর দরিদ্রদের আজ বস্ত্র বিতরণ এবং খাবার বিতরণ করা হয়।

উপস্থিত ছিলেন নৃত্যশিল্পী এবং ডান্স থেরাপিস্ট নুপুর মুখার্জী এবং স্বর্গীয় বিনা রায়ের পরিবার-পরিজনরা।

অল ইন্ডিয়া উলেমা বোর্ড



শুভাবরি ওয়েবডেস্ক,1আগস্ট,কলকাতা: কলকাতা প্রেসক্লাবে অল ইন্ডিয়া উলেমা বোর্ড এর তরফ থেকে এক সাংবাদিক সম্মেলন করা হয়। যার আলোচ্য বিষয় ছিল, অল ইন্ডিয়া উলেমা বোর্ড এর মূল লক্ষ্য, আসন্ন ঈদ উল জোহার জন্য সচেতনতা এবং কিছু নতুন মানুষকে তাদের সংস্থার সঙ্গে যুক্ত করা।
এখানে আলোচনা হয়, ভারতের সংস্কৃতি এবং প্রত্যেক দিনের বিভিন্ন জায়গায় হিন্দু মুসলিম ঐক্য এবং ধর্মের মধ্যে যে রাজনীতি নিয়ে আসছে তার ওপর। এক্ষেত্রে একটি কথা বারবার উঠে আসে যে অল ইন্ডিয়া উলেমা বোর্ড প্রধানত পিছিয়ে পড়া মানুষদের জন্য – শিশুদের শিক্ষা, নারী ও শিশুদের জাগ্রত করা এবং তাদের অধিকার সম্পর্কে সচেতন করা এই কাজটি প্রধানত করে থাকে। বক্তারা আরেকটি কথা স্পষ্ট করে দেয়, এখানে শুধুমাত্র মাইনোরিটি অর্থাৎ পিছিয়ে পড়া বা সংখ্যালঘু মানুষরাই নন। সকল ধর্মের সকল জাতির মানুষকে সাহায্য করবেন তারা। আজ সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন অল ইন্ডিয়া উলেমা বোর্ডের জাতীয় সভাপতি শেখ গোলাম রাব্বানী, জাতীয় সম্পাদক ওয়ারিস আলী, আরশাদ নাদভী , হুসনারা সালিম, রাজা আহমেদ , মহ সালহাউদ্দিন , শাবানা সাইদ প্রমূখ ।

নতুন পদে আতিফ আল কাদরী

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক,29জুন, কলকাতা: সব ধর্মই পারস্পরিক সহাবস্থানের কথা বলে। আজ কলকাতা প্রেস ক্লাবে international human rights council এর উপদেষ্টা মন্ডলীর সভাপতি পদে নিযুক্তি পত্র প্রদান অনুষ্ঠানে পীরজাদা আতিফ আল কাদরী পদভার গ্রহণ করতে এসে একথাই বললেন। তিনি আরও বলেন, ধর্মনিরপেক্ষতা ও বাক স্বাধীনতা আমাদের সাংবিধানিক অধিকার। কিন্তু  সে অধিকার আজ খর্ব হচ্ছে। ধর্মীয় স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করা হচ্ছে। আমার দাবি, ধর্মকে যেন রাজনীতির সাথে জুড়ে না দেওয়া হয়।
অরুনজ্যোতি ভিক্ষু বলেন, লোকসভা নির্বাচনের ফল ঘোষণার পর থেকেই একটা অস্থিরতা শুরু হয়েছে। দ্বীতিয়বারের জন্যে এই সরকার আসার পরে ভেবেছিলাম ভালো শাসন পাবো। কিন্তু  তা হলো না। বাস্তবে আমরা কেউই অপ্রাকৃতিক ভাবে মৃত্যু চাই না। কিন্তু  সেটাই হচ্ছে।
এদিন অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মুনি মহারাজ,বলজিৎ সিং, সংগঠনের সভাপতি মৈনুল হক প্রমুখ।

হামলার নিন্দা



শুভাবরি ওয়েবডেস্ক,9মে, কলকাতা: ডেমোক্রেটিক ন্যাশনাল পার্টি সহ চারটি সংগঠন ফুরফুরা শরীফের পীর আব্বাস সিদ্দিকির সমর্থকদের ওপর রাজনৈতিক আক্রমণের তীব্র ধিক্কার জানালো ।এক সাংবাদিক সম্মেলনে ডি এন পি র পক্ষে ইমতিয়াজ আহমেদ মোল্লা বলেন, ” গত 7মে অল হে সাম্নাতুল জামাতের দুই সদস্যকে আক্রমণ করে তৃণমূলের সদস্যরা । তার দাবী তৃণমূল প্রার্থী কল্যাণ ব্যানার্জির মদতপুষ্ট রাজেন কুন্ডু এই কাজে যুক্ত । যেহেতু আব্বাস সাহেব এলাকার অনুন্নয়নের নিরিখে কল্যাণ বাবুকে ভোট না দেবার কথা বলেছেন ।তাই তার সমর্থকদের আক্রমণ করা হয়েছে। আগামী 14মে তারা হাওড়ার ডি এম কে স্বারকও দেবেন। এদিন আই পি এফ এর সুদর্শন বসুও উপস্থিত ছিলেন ।

সমস্যায় টলিউড

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক, কলকাতা : সকাল সন্ধ্যে আমাদের মনোরঞ্জন করছেন যে সমস্ত সহ শিল্পীরা তাদের পারিশ্রমিক নিয়ে সমস্যায় পড়েছেন তারা। বহু দিন ধরে তারা পারিশ্রমিক পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ ।
আজ কোর কমিটির মিটিং-এ নিম্নলিখিত সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছেঃ

১) ১লা মে যে মিটিং হবে সেই মিটিং-এ আমরা সবাই উপস্থিত থাকব এবং আমাদের টাকার ব্যাপারে নির্দিষ্ট committment এর দাবিতে অনড় থাকব।

২) আমাদের দাবি মানা না হলে আমরা ২ তারিখ থেকে গণ আন্দোলনে যাব, পথে নামব এবং যতদূর যেতে হয় যাব।

৩) ১লা মে মিটিং-এ যাবার আগে আমরা সবাই দুপুর ৩টের সময় একাডেমির সামনে গাছতলায় জমায়েত হব এবং মিটিং-এ গিয়ে সবাই একযোগে কি বলব সেটা স্থির করে নেব। তারপর সেখান থেকে আমরা সবাই ফোরামের ডাকা মিটিং-এ যাব।

৪) আগামী ৫দিনের মধ্যে আমরা, কোর কমিটির সদস্যরা, industryর বিশিষ্ট কিছু মানুষের কাছে গিয়ে জানিয়ে আসব আমাদের এই ভয়ঙ্কর অবস্থার কথা, যাতে ২তারিখ থেকে আমরা গণ আন্দোলনে গেলে সেই সমস্ত মানুষকে আমাদের পাশে পাই।

৫) আমরা কোন অবস্থাতেই লড়াই ছাড়বনা এবং আমাদের টাকা দিতে চ্যানেল/প্রডিউসার/ফোরাম/ফেডারেশন (সে যেই হোক), তাকে বাধ্য করব।

৬) সবাই প্রস্তুত থাকো প্রয়োজনে আমাদেরকে industry বন্ধ করে দিয়ে টাকা আদায় করতে হবে। তার জন্য আমাদের ওপর স্বার্থান্বেষীদের আঘাত নেমে আসতে পারে। আমরা সবাই যেন সেই যুদ্ধের জন্য মানসিকভাবে তৈরী থাকি।

সন্ত্রাসের প্রতিবাদে …

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক, ২৪ এপ্রিল, কলকাতাঃ পবিত্র ইস্টারে শ্রীলঙ্কার গির্জা সহ বহু জায়গায় সন্ত্রাসবাদী বিস্ফোরণে কয়েকশো মানুষ প্রান হারান। সেই সন্ত্রাসবাদী হামলার প্রতিবাদে এক সাংবাদিক সম্মেলন করেন অল ইন্ডিয়া মিল্লি কাউন্সিল পশ্চিমবঙ্গ শাখা। উপস্থিত সকল শান্তি প্রেমী মানুষদের কথায় বিশেষত উঠে আসে সন্ত্রাসবাদী হামলার নিন্দা। তাঁদের কথায় কোন ধর্মীয় গ্রন্থ ধর্মের নামে মানুষকে হত্যা করার কথা বলে না। তারা বলেন, “ মানুষের পরম ধর্ম মানব ধর্ম”।

এছাড়া লোকসভা নির্বাচনের জন্য তারা মানুষের কাছে আহ্বান জানান যে একটি ধর্ম নিরপেক্ষ নীতিযুক্ত সরকার গঠন করতে হবে । এই আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন কারি ফজলুর রহমান , মহ সাফিক, ডঃ অরুনজ্যোতি ভিক্ষু, মেহের আব্বাস রিজবি সহ প্রমুখ।

প্রার্থী তালিকা প্রকাশ……

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক, কলকাতাঃ ২০১৯ লোকসভাতে লড়তে চলেছে অল ইন্ডিয়া লেবার পার্টি । এক সাংবাদিক সম্মেলনে তাদের সভাপতি তাবারক হোসেন প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেন। তারা পশ্চিমবঙ্গের ৪২ টি আসনেই লড়বেন বলে জানিয়েছেন।

বসিরহাটে-  তাবারক হোসেন।বর্ধমানদুর্গাপুর -জলফিকার মিয়াঁ

বারাসাত-  আমিনা পারভিন               আসানসোল- আনিসুর রহমান

দমদম-  অমল ব্যানার্জি                              ঝারগ্রাম- সুশীল মুরমু

বনগাঁ-  সুরঞ্জন হালদার                    মেদিনীপুর- শঙ্কর পাল

রানাঘাট-  অনামিকা মণ্ডল                ঘাটাল – প্রতিমা আধিকারি

কৃষ্ণনগর- জামির আহমেদ               কাঁথী – তপন মাইতি

বারাকপুর- ডঃ সুবির সেন                 তমলুক – শিব শঙ্কর বিশ্বাস

কলকাতা উঃ – সঞ্জয় গমস               বালুরঘাট- মিহির দেবনাথ

কলকাতা দঃ – অমলেন্দু মুখপাধ্যায়      মালদা উঃ –নুর ইসলাম মোল্লা  

হাওড়া- সৈয়দ সুবুর আলি                 মালদা দক্ষিন – ইরফান শেখ  

উলুবেড়িয়া- জাহির আহমেদ              জঙ্গিপুর- আব্দুল হাসির

শ্রীরামপুর- বাহারুল ইসলাম              মুর্শিদাবাদ- তসলিমা পারভিন

জয়নগর- তপন মিস্ত্রি                      বহরামপুর- মেহদি হাসান

মথুরাপুর- কৃপা সিন্ধু মণ্ডল                বোলপুর – দিবাকর মণ্ডল

যাদবপুর- ডঃ সুরেশ গাঙ্গুলি               বীরভূম – কাজী ইমতিয়াজ হোসেন

বর্ধমান পূর্ব- পলাশ মণ্ডল                 বিষ্ণুপুর – মদন মোহন হালদার

সভাপতি জানান , বাকী কেন্দ্রের প্রার্থী তারা পরে ঘোষণা করবেন।

Book Review

From the reporter’s heart — The Vulture’s Feast

The universe of newsmakers is unknown. What happens if it gets exposed in front of you with all its good and bad? The author duo Roshni Rajaram and Ayodhya Prasad Gaur have come up with the stories of the storytellers in their book.

In a drought affected region, how a reporter changes the cause of death and starvation to shape a breaking news? How often a ‘rape’ is repeated through the reporting process in news rooms? You will find many such answers here.

Author Roshni Rajaram and Ayodhya Prasad have been able to highlight some of the important events through a series of real stories in this book. The title of the book is ‘The Vulture’s Feast’.

This book is a compilation of experiences of how the journalists, considered to be torch bearers of the fourth pillar of democracy, work under immense pressure. If journalists decide to introspect or if even if the readers read the truth between the lines, then the extent of extreme pain can be felt in form of these stories.

How a women who is a victim of character assassination for some unfortunate incident, often ‘assaulted’ repeatedly only for the TRP or commercial success of the news. The book has been written without distorting the facts. As you flip through the pages and dive into the script, you will discover how reporters or photographers have to act like the puppets of the circumstances while sacrificing moral values. They have to act because, the person sitting at the top wants ‘news that the public will consume’.

In the name of commercial interest or public demand, blood-pain-tears are mixed. If you want to select one story from The Vulture’s Feast; The ‘Nip Slip’ is said to be the true story of a woman subjected to an incident of wardrobe malfunction during a ramp walk. In this case, the incident was spiced for the eyes and imagination of the reader, without any consideration for the feelings of the victim.

I was wondering how to read the book that touches and tears into an unexplored territory. Roshni and Ayodhya Prasad have definitely exhibited the courage to challenge the crocodiles while surviving in the water!

Although as reporters or responsible citizens , we do not find the courage to tell the truth everytime, atleast reading this book will provide a sense of satisfaction. Because, this battle is one that takes place in a reporter’s mind every single day.

প্রতিবাদী

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক, ১৮মার্চ, কলকাতা: Qari Ahmer Foundation আজ এক সাংবাদিক সন্মেলনে নিউজিল্যান্ডের সাম্প্রতিক হত্যাকান্ডের প্রতিবাদ করে। সংস্থার পরিচালক জায়েদ আনোয়ার এ প্রসঙ্গে বলেন, মুসলমানরা তাদের বক্তব্য সমাজের সামনে খুলে বলতে পারে না। তাই সব ক্ষেত্রে তাদের উগ্রবাদীর তকমা লাগে। তিনি বলেন, হিরোশিমার ঘটনা কিন্তু মুসলমানরা সংগঠিত করেনি। জায়েদ আনোয়ার শান্তির পক্ষে সওয়াল করে নিউজিল্যান্ডের সাম্প্রতিক হত্যাকান্ডের নিন্দা করেন। জৈন ধর্মগুরু মুনি মহারাজ বলেন, ১৪ ফেব্রুয়ারির পুলোয়ামা হত্যাকান্ডের নিন্দা করলেও তার প্রতিরোধে আক্রমণ কে উনি সমর্থন করেন না।
এদিন অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন গোলাম রাব্বানী, অরুনজ্যোতি ভিক্ষু, রেভ ড. শ্রীকান্ত দাস, সফিক কোয়াসমী প্রমুখ।
অনুষ্ঠানের আয়োজক ও সঞ্চালক এম এ আলি।

প্রবীণদের অন্যতম ঠিকানা রাইজিং কেয়ার…

বর্তমানে মানুষের ব্যাস্ততা এবং কর্মসূত্রে বাড়ি ছেড়ে ভিন জায়গায় থাকার প্রবণতা অনেকাংশে বেড়ে গিয়েছে । ফলে সেরকম ভাবে নজর দিতে পরছে না পরিবারের দিকে। শূণ্য বাড়িতে থাকছেন বৃদ্ধ বাবা-মা। একান্নবর্তী পরিবারের সংখ্যাও কমে আসছে দ্রুত। কিন্তু বয়স্কদের স্বাস্থ্যের খেয়াল রাখাও দরকার। ফলে জন্ম নেয় বিভিন্ন জেরিয়াট্রিক হোম কেয়ার সার্ভিসের।
২০১৩ সালে এই ধরণের এক পরিষেবার সংস্থা তৈরী হয় ~ রাইজিং কেয়ার। সংস্থার সদস্য সংখ্যা বর্তমানে ৪০০ ছাড়িয়েছে। শুধু মাত্র শরীর সাস্থ্যের দেখাশোনাই নয়, মানসিক স্বাস্থের দিকেও নজর রাখছেন রাইজিং কেয়ারের মনোবিদ ও কর্মীরা। তাদের পরিষেবার মধ্যে আছেঃ

নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা , প্রবীন সদস্যদের চিকিৎসকের চেম্বারের নিয়ে যাওয়া, দক্ষ ও অভিজ্ঞ ফিজিওথেরাপিস্ট দ্বারা ফিজিওথেরাপি, খাদ্যাভ্যাসের দিকে নজর দেওয়া, প্রবীণদের তাদের ছেলেমেয়েদের সাথে স্বাইপিতে যোগাযোগ করানো, নিয়মিত সদস্যদের শপিং মল-যোগা-সিনেমা হল- ধর্মীয় স্থানে যাওয়ার ব্যবস্থা করা।

সম্প্রতি বাৎসরিক মিলনোৎসবে প্রায় ১০০ জন প্রবীণ-প্রবীণা অংশগ্রহণ করেছিলেন। সাথে ছিলেন রাইজিং কেয়ারের চিকিৎসক এবং সাধারণ কর্মীরা।
যোগাযোগঃ ৯০৩৮০৭৭৭৮৪ , www.risingcare.org

ফুটবল টুর্নামেন্ট

শুভাবরি ওয়েবডেক্স, ২৮ জানুয়ারী কলকাতা: ওয়েলফেয়ার অ্যাথিলিটিক ক্লাব আজ একটি ফুটবল টুর্নামেন্ট এর আয়োজন করে । যার উদ্বোধনের উপস্থিত ছিলেন প্রধান অতিথি জনাব মহঃ আয়ুব, মহঃ আফতাব, জনাব আখতার, অখিলেশ সিং এবং বিভিন্ন জাতীয় ফুটবল ক্লাবের প্রাক্তন খেলোয়াড় । মহঃ আয়ুব সকল খেলোয়াড়কে উৎসাহিত করেন ও সম্প্রীতির বার্তা দেন।

আবার নেতাজী

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক , ৪ জানুয়ারি ২০১৯, কলকাতাঃ ২০০ বছরের ব্রিটিশ শাসনের ভিত নারিয়ে দিয়েছিলেন নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসু। তাঁর মতাদর্শকে নিয়ে আর একটি নতুন রাজনৈতিক দলের প্রতিষ্ঠা হতে চলেছে , ALL INDIA FORWARD BLOC ( NETAJI) । সংস্থাপক রাইমোহন সিং দলের সম্পর্কে এক সাংবাদিক সম্মেলনে বলেন, “ গত ২০১৮ সালের অক্টোবর মাসে আমাদের এই সংগঠন তৈরি হয়। নেতাজী মতাদর্শকে প্রতিষ্ঠা করতে আমরা অগ্রণী ভুমিকা পালন করতে দৃঢ় সঙ্কল্প নিয়েছি”। যদিও রাজনৈতিক দল হিসাবে এখনো রেজিস্ট্রি হওয়া বাকী । একান্ত সাক্ষাৎকারে রাইমোহন সিংঃ

http://shubhabori.co.in/inshot_20190104_223105337/

মাদারের মূর্তি উন্মোচন

http://shubhabori.co.in/inshot_20181215_203448886/

সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা ও বিপন্ন শৈশব: আমাদের দায়িত্ব

সমাজ ও সম্প্রদায়- একটি শিশুর মানসিক বিকাশে এক বৃহৎ ভূমিকা পালন করে থাকে। কোন শিশুর বেড়ে ওঠার সময় সুষ্ঠ, শান্ত পরিবেশ, নিরাপদ আবহ ভবিষ্যতে একটি সুস্থ, স্বাভাবিক জীবন যাপনের জন্য অপরিহার্য। কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয়, যে এই বিশ্বের অসংখ্য শিশু সেই ন্যূনতম অধিকার থেকে বঞ্চিত। সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা, সন্ত্রাস হল এমনই একটি দিক যার সংস্পর্শ শৈশবের বিকাশের সমস্ত দ্বারই প্রায় চিরতরে রুদ্ধ করে দেয়; মূলতঃ জীবনের শুরুতেই তারা যে নির্মল দৃষ্টি নিয়ে এই পৃথিবীকে চিনতে, বুঝতে শুরু করেছিল, সেই দৃষ্টিভঙ্গিরই আমূল পরিবর্তন ঘটে, এবং এই পরিবর্তন কখনও স্বাভাবিক নয়, বা অভিপ্রেতও নয়। ঘটনা ছোট হোক বা বড়, নিজের প্রতিবেশীদের মধ্যেই হোক বা যুদ্ধের আবহেই হোক, নিজের চোখে দেখা বা কানে শোনা – যেকোন রকম সাম্প্রদায়িক হিংসাত্মক ঘটনা একটি শিশুর কোমল অন্তরে প্রচন্ড আলোড়ন তুলতে পারে।

হিংসার প্রতিক্রিয়া কি?’হিংসায় হিংসার শেষ হয়না।’ শৈশবে যে মারাত্মক হিংসার সম্মুখীন হয়েছে, বড় হয়ে তার পক্ষে হিংসাত্মক কার্যকলাপে জড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা প্রবল – বিভিন্ন গবেষণায় তা উঠে এসেছে। অত্যন্ত নৃশংস আতংকবাদী হানাগুলির ক্ষেত্রে দেখা যায়, হামলাকারীদের অনেকেই শৈশবে হিংসা ও নির্যাতনের শিকার হয়েছিল। শৈশবের আতঙ্কের নির্মম যাঁতাকলের চক্র থেকে তারা কোনদিনই বেরিয়ে আসতে পারেনি। জঙ্গি কার্যকলাপে সকলেই সামিল না হলেও অসংখ্য শিশু তাদের বাকি জীবন নানা জটিল মানসিক সমস্যা নিয়েই বেঁচে থাকতে বাধ্য হয়, যেমন- অবসাদ, উদ্বেগ, Post Traumatic Stress Disorder (PTSD), নেশাগ্রস্ততা, আত্মহননের প্রবণতা, ইত্যাদি তাদের নিত্যসঙ্গী। মানবতার প্রতি, ভালোবাসার প্রতি, পরিবার তথা সামাজিক বন্ধন ও নিরাপত্তার প্রতি তাদের বিশ্বাস, আস্থা সম্পূর্ণভাবে বিধ্বস্ত হয়ে যায় চিরতরে। বুদ্ধির বিকাশের সবচেয়ে মোক্ষম স্তরটি হল শৈশব ও কৈশোর। আতঙ্কের অন্ধকার একটি শিশুকে এমনভাবে শ্বাসরোধ করে দেয়, যে তার স্বাভাবিক বিকাশ কখনই সম্ভব হয়না, হিংসা তার চিরসঙ্গী হয়ে যেতে থাকে।

কোন জাতির বা দেশের পক্ষে এ এক অপূরণীয় ক্ষতি। কারন শিশুরাই তো জাতির ভবিষ্যৎ। সাম্প্রদায়িক হানাহানিতে কোনদিন কারুর লাভ হয়নি, বরং ভবিষ্যতের প্রজন্মের মানসিকতা সম্পূর্ণ ভাবে বিধ্বস্ত হয়ে গেছে। ইউনিসেফ, হু (WHO), চিলড্রেন এন্ড আর্মড কনফ্লিক্ট (CAAC) এর মত অসংখ্য আন্তর্জাতিক সংস্থা এই সমস্ত যুদ্ধবিধ্বস্ত, দাঙ্গাবিক্ষুব্ধ, অনাথ, অসহায় শিশুদের উদ্ধার করতে, তাদের বিপন্ন শৈশবকে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে আফ্রিকায়, সিরিয়ায়, মায়ানমারে। তাদের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করছে আমাদের দেশের ন্যাশনাল ফাউন্ডেশন ফর কম্যুনাল হারমোনি (NCCH), যার লক্ষ্য সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় সর্বহারা শিশুদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করে তাদের সুস্থ জীবনে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়ার নিরলস সংগ্রাম। ১৯৯২-এ পার্লামেন্টে বাজেট অধিবেশনে তৎকালীন অর্থমন্ত্রী (উত্তরকালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী) ডঃ মনমোহন সিং খুব প্রাঞ্জলভাবে বলেছিলেন, ‘সমাজবিরোধী আর ভ্রান্ত মৌলবাদী শক্তিগুলির জঘন্য কার্যকলাপের সহজতম শিকার হয় তারা (শিশুরা)। এই সমস্ত শিশুর অধিকার নিশ্চিত করতে, তাদের সর্বাঙ্গীন মঙ্গলার্থে, বিশেষত তাদের সুশিক্ষার জন্য সরকার ন্যাশনাল ফাউন্ডেশন ফর কম্যুনাল হারমোনি নামের এই স্বতন্ত্র ও অ-সরকারী সংস্থার প্রস্তাবনা পেশ করছে।’ মূলত, দানের উপরেই এটি নির্ভর করে এই সে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনটি। প্রতিবছরের মত এই বছরও সংস্থাটি ১৯ থেকে ২৫ শে নভেম্বর এক সপ্তাহ ধরে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিমূলক প্রচার আর অনুদান সংগ্রহের বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ করেছে। এর নাম ‘সাম্প্রদায়িক ঐক্যের সপ্তাহ’। নানান অনুষ্ঠানে পালিত হবে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ফ্ল্যাগ ডে, আগামী ২৪শে নভেম্বর। ভারতের বিভিন্ন রাজ্য থেকে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় অনাথ শিশুদের এই সপ্তাহে রাজধানী দিল্লীতে নিয়ে আসা হয়, তারা বিভিন্ন অনুষ্ঠানে তাদের কষ্টের অভিজ্ঞতার কথা বলে, আর আপামর দেশবাসীকে অনুরোধ করে শান্তির, সম্প্রীতি ও জাতীয় সংহতির পথে চলতে। ভারতের রাষ্ট্রপতি, উপরাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রীও উপস্থিত থাকেন। সেই ছোট ছোট শিশুরা তাদের পতাকা ঐ সব বিশিষ্ট মানুষদের পোশাকে লাগিয়ে দেয়। বাকি সময়টা তারা একসঙ্গে দিল্লীর বিভিন্ন জায়গায় বেড়িয়ে আসে।

সম্প্রীতির আহ্বান ।

সম্প্রীতির বার্তা দিলেন মৌলানা মুস্তাক আলী ও সারফরাজ রায়।

 

ধ্যান মানুষের জীবনের জন্য কতটা জরুরী অথবা ধ্যানের শুরুই বা কিভাবে করব ?- বললেন স্বামী শঙ্করানন্দ ( INTERNATIONAL VEDANTA SOCIETY)

https://youtu.be/EN83VvRRnW8

 

 

   ইসলাম : সমগ্র সৃষ্টির জন্য, সংস্কারের জন্য

ইসলামের লক্ষ্য কি? নানা বিদ্বজন নানান ভাবে এর ব্যাখ্যা দেবেন। এক কথায় হয়ত এর একটিই মাত্র উত্তর হয়না। অবশ্যই ইসলাম এই জগতের সব ভালো মানুষগুলোকে একত্রিত করতে চায় আর তাদের একটিমাত্র লক্ষ্যে নিয়োজিত করতে চায়, সেই লক্ষ্য – এই জগতের সমস্ত অত্যাচার, অবিচার, দুর্নীতির অবসান, আর কল্যাণসাধন – কেবলমাত্র মানবসমাজেরই নয়, পরম করুণাময় আল্লাহের এই মহান সৃষ্টির প্রতিটি অনু পরমাণুতে সেই কল্যাণের আলো পৌছে দেওয়ার। পবিত্র কুরআন হল আল্লাহের নিজের বার্তা, তাহলে সেই অনুদেশ এত দীর্ঘসময় ধরে (প্রায় ২৫ বছর) নবী মুহাম্মদের কাছে কেন তিনি প্রকাশ করলেন? খুব সহজেই অনুমেয়, সমসাময়িক পরিস্থিতিতে, কালোপযোগী প্রয়োজনের পরিপ্রেক্ষিতে সর্বোত্তম পথের দিশা পেয়েছিলেন মহান নবী, ধীরে ধীরে। প্রচলিত ধারণা যাই হোক না কেন, ইসলাম একটি চিরন্তন সেকুলার ধৰ্ম। সেকুলার, কারণ ইসলাম কোনদিন অন্য ধর্মের, অন্য বিশ্বাসের, অন্য মতবাদের, অন্য বিচারের অস্তিত্বকে অস্বীকার করতে চায়নি। ভিন্ন মত মাত্রই তাকে প্রতিপক্ষ ভেবে বসার মত তুচ্ছ শিক্ষা ইসলামের নয়। বরং, মতের পার্থক্যকে সম্মান জানিয়ে, তার অস্তিত্বকে স্বীকৃতি দিয়েও, কিভাবে শান্তি, সহাবস্থান, সম্প্রীতি, ভ্রাতৃত্ববোধের অঙ্গনে এই সমগ্র বিশ্বের বৃহত্তর কল্যানসাধনে ব্রতী হওয়া সম্ভব, সেই শিক্ষাই ইসলামের শিক্ষা।

সমগ্র বিশ্বে ছড়িয়ে থাকা ইসলামী সংস্কৃতিগুলিকে দেখলে, বা ইসলামভিত্তিক সভ্যতাগুলিকে, বা আজ যে সব দেশ ইসলামিক রাষ্ট্র হিসেবে পরিচিতি, সেগুলির দিকে তাকালে স্পষ্ট দেখা যাবে, যে আধুনিক বিশ্বের বিজ্ঞান, প্রযুক্তি ও বিশ্বায়নের সঙ্গে সম্পূর্ণ সাযুজ্য রেখে তারাও এগিয়ে চলেছে, অনেক দেশই প্রথম সারির উন্নত দেশগুলির মধ্যে স্থান করে নিয়েছে। ‘আল্লাহ কোন জাতির অবস্থা পরিবর্তন করেন না, যতক্ষণ না তারা নিজেরাই তাদের নিজেদের অবস্থা পরিবর্তন করে।'(সূরা রা’দ, ১৩:১১)। অর্থাৎ, মুসলিমদের আপন ধর্মের প্রতি সৎ থাকতে হবে, তার অনুসরণ করতে হবে, ইসলামের জয়যাত্রায় সামিল হতে হবে; সঙ্গে এও খেয়াল রাখতে হবে যেন সেই পথ সরল হয়, আলোয় উজ্জ্বল হয়, কোন স্বার্থান্বেষী মৌলবাদী, উগ্রবাদী, বা আতংকবাদীর অন্ধকার পথে গিয়ে না মেলে।

 

সম্প্রীতির ভারত

 

“বেদান্ত ও মানুষের জীবন অঙ্গাঅঙ্গি ভাবে জরিত “-

আমাদের সাথে কথা বলেন ইন্টারন্যাশনাল বেদান্ত সোসাইটির স্বামী শঙ্করানন্দ…।।

https://youtu.be/Qa8D1ZC3qGA