রাজ্য

আজাদ হিন্দ সরকারের ৭৭ তম স্থাপনা দিবস

২৩ অক্টোবর, শুভাবরি ওয়েব ডেস্ক কলকাতা: আজাদ হিন্দ সরকারের ৭৭ তম স্থাপনা দিবস উপলক্ষে গত কুড়ি অক্টোবর ব্যারাকপুরের মোহনপুরে সারা ভারত ফরওয়ার্ড ব্লক (নেতাজি) দলের পক্ষ থেকে এক মনোজ্ঞ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। উল্লেখ করা যেতে পারে হাজার ১৯৪৩ সালের একুশে অক্টোবর জননায়ক নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু আজাদ হিন্দ সরকার গঠন করেছিলেন। তাই একুশে অক্টোবরের স্থাপনা দিবসকে স্মরণে রেখে কুড়ি অক্টোবর রাসবিহারী বসু মঞ্চে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন।
এদিন সকালে আজাদ হিন্দ বাহিনীর শহীদ বীর সেনাদের স্মরণে শহীদ বেদিতে পুষ্পাঞ্জলী এবং মালা অর্পণ করেন রাইমোহন সিংহ, চেয়ারম্যান সারা ভারত ফরওয়ার্ড ব্লক (নেতাজি) ,চন্দ্রশেখর ঘোষ, নেতাজি ব্যুরো সদস্য, নির্মল দাস রাজ্য সভাপতি প্রমূখ। পরে ভিন্ন আলোচনা সভা এবং পথ পরিক্রমার মাধ্যমে এই স্মরণীয় দিনটিকে উদযাপন করা হয়।

মোমবাতি মিছিল

ডিজিটাল, 4 অক্টোবর20: আজ দঃদিনাজপুর জেলা ছাএপরিষদের পক্ষ থেকে উওরপ্রদেশের হাতরাসে মনীষা বাল্মিকী র উপর পৈশাচিক নির্যাতনের প্রতিবাদে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে ও তার অাত্মার শান্তিকামনায় গোপালগঞ্জ থেকে কুমারগঞ্জ অবধি মোমবাতি মিছিল করা হয়, পাশাপাশি কুমারগঞ্জ,গঙ্গারামপুর,মেদিনীপুর সহ পশ্চিম বাংলার বিভিন্ন প্রান্তে ঘটে যাওয়া ধর্ষণ কান্ডে জরিতদের শাস্তি ও ধর্ষিতার পরিবার যেন সঠিক বিচার পায় তারও দাবি রাখা হয়,উপস্থিত ছিলেন ছাএপরিষদের রাজ্য সভাপতি সৌরভ প্রসাদ,রাজ্য যুব কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক শংকর মজুমদার,কুমারগঞ্জ ছাত্রপরিষদের সভাপতি কানাই সরকার, যুব সভাপতি মদন সরকার, যুব নেতা মলয় বর্মন ,ছাএপরিষদের সহ- সভাপতি শাহজাহান অালী।

জামাআতে ইসলামি হিন্দের উদ্যোগে এম.আর বাঙ্গুর হাসপাতালে পি.পি. কিটস প্রদান

ওয়েবডেস্ক,12 সেপ্টেম্বর,2020,কলকাতা: জামাআতে ইসলামি হিন্দের পশ্চিমবঙ্গ শাখার উদ্যোগে কলকাতার বিভিন্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পি.পি কিটস প্রদান করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আজ তার অংশ হিসেবে কলকাতার এম .আর বাঙ্গুর হাসপাতালে পি.পি কিটস প্রদান করা হয়েছে।জামাআতের রাজ্য বিভাগীয় সম্পাদক সাদাব মাসুমের নেতৃত্বে এক প্রতিনিধি দল এম.আর বাঙ্গুর হাসপাতাল এর সুপারের হাতে এই পি .পি কিটস তুলে দেই। প্রতিনিধিদলে ছিলেন রাজ্য জনজনযোগ বিভাগের সহকারি সুজাউদ্দিন আহমেদ, রাজ্য দপ্তর সম্পাদক সাবির আলি প্রমুখ। জামাআতে ইসলামি হিন্দের রাজ্য সভাপতি মাওলানা আব্দুর রফিক সাহেব জানিয়েছেন, করোনা ভাইরাসে আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য বিভিন্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ডাক্তাররা যে ভাবে নিজেদের জীবনকে বাজি রেখে ময়দানে কাজ করছেন তাতে আমরা গর্বিত। তিনি আরো বলেন, ডাক্তাররা যাতে আরো ও বেশি করে মানবতার সেবায় নিয়োজিত হোন সেইজন্য উৎসাহিত করার উদ্দেশ্যে এই উদ্যোগ।

মুখ্যমন্ত্রীর সিদ্ধান্তকে স্বাগত জামাতের

ওয়েবডেস্ক, 10সেপ্টেম্বর,কলকাতা: নিট পরীক্ষার্থীদের অসুবিধা বিবেচনা করে ১২ সেপ্টেম্বর রাজ্য সরকারের লকডাউন প্রত্যাহারকে স্বাগত জানালো জামাআতে ইসলামী হিন্দ।
সংগঠনের পশ্চিমবঙ্গ শাখার সভাপতি মাওলানা আব্দুর রফিক ১২ ই সেপ্টেম্বরের ঘোষিত লকডাউন প্রত্যাহার করার রাজ্য সরকারের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, নিট পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা আগামী ১৩ ই সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। তাই পরীক্ষার্থীদের সুবিধার জন্য আমরা সরকারের কাছে লকডাউন প্রত্যাহার করার আবেদন জানিয়েছিলাম। মুখ্যমন্ত্রী মাননীয়া মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় লকডাউন প্রত্যাহার করার ঘোষণাকে আমরা স্বাগত জানাচ্ছি। আশা করা যায় নির্বিঘ্নে নিট্ পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষা দিতে পারবেন।

নিট পরীক্ষার্থীদের হয়রানির আশঙ্কা, লকডাউন প্রত্যাহারের আর্জি জামাআতের

ওয়েবডেস্ক, 9সেপ্টেম্বর,2020, কলকাতা: নিট পরীক্ষার্থীদের কথা মাথায় রেখে ১১ ও ১২ ই সেপ্টেম্বর রাজ্য সরকার ঘোষিত লকডাউন প্রত্যাহার করার আর্জি জানিয়েছেন জামাআতে ইসলামি হিন্দের পশ্চিমবঙ্গ শাখার সভাপতি মাওলানা আব্দুর রফিক সাহেব। তিনি এক বিবৃতি বলেন, ” বিভিন্ন রাজ্যের আপত্তি থাকলেও শেষ পর্যন্ত সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে আগামী ১৩ ই সেপ্টেম্বর সর্বভারতীয় পর্যায়ে নিট পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। কলকাতা ও শিলিগুড়ি শহরে নিট পরীক্ষা গ্রহণ করা হচ্ছে। কিন্তু পরীক্ষা নিয়ে নিট পরীক্ষার্থীরা হয়রানির আশঙ্কা করছে। কারন পরীক্ষার আগের দুদিন রাজ্যে লকডাউন ঘোষিত হয়েছে। ফলে দূরদূরান্ত থেকে পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষাকেন্দ্রে পৌঁছানো দুরূহ ব্যাপার হয়ে দাঁড়াচ্ছে। বিশেষ করে বিভিন্ন জেলা থেকে যে সমস্ত পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেবে তাদের অনেককেই পরীক্ষার দুইদিন আগে কলকাতা বা শিলিগুড়িতে আসতে হচ্ছে। ফলে যানবাহনে আসা, শহরে থাকা, খাওয়া – দাওয়ার ব্যবস্থাপনা করতে হচ্ছে যা খুবই কষ্টকর”। তিনি আরো বলেন,” এই ধরনের একটি গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষার কথা মাথায় রেখে রাজ্য সরকারের কাছে আর্জি জানাচ্ছি পরীক্ষার্থীদের সুবিধার জন্য ঘোষিত লকডাউন প্রত্যাহার করা হোক। যাতে করে নির্বিঘ্নে পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষা দিতে পারে এবং অভিভাবক বা অভিভাবিকারা নিশ্চিন্ত হতে পারেন। “

পুরনো মহিমায় ফিরছে ব্যাঙ্কিং পরিষেবা: সঞ্জয় দাস

ওয়েবডেস্ক, 4সেপ্টেম্বর,কলকাতা: রাজ্যস্তরীয় ব্যাংকিং কমিটির সাথে আলোচনার পর এ আই বি ও সি এর রাজ্য সম্পাদক সঞ্জয় দাস জানান “এখন থেকে শুধুমাত্র দ্বিতীয় এবং চতুর্থ শনিবার ব্যাংক বন্ধ থাকবে। প্রথম ও তৃতীয় শনিবার করোনা আবহের জন্য কিছু সময় ব্যাঙ্ক বন্ধ ছিল।” তিনি আরো জানান “এখন থেকে চারটে পর্যন্ত ব্যাংক খোলা থাকবে। তবে লকডাউন এর দিনগুলি ব্যাংক সম্পূর্ণ বন্ধ থাকবে।”
উল্লেখ্য, এই মর্মে রাজ্য অর্থদপ্তরও একটি নোটিশ জারি করে।

ছাত্র পরিষদের দাবি



ওয়েবডেস্ক, 29 আগস্ট,কলকাতা: করোনা আবহে সুপ্রিম কোর্ট নিট এবং জেইই পরীক্ষা করা এবং কলেজ ও ইউনিভার্সিটির চূড়ান্ত বর্ষের পরীক্ষা নেওয়ার স্বপক্ষে মত দিয়েছে। পশ্চিমবঙ্গ প্রদেশ কংগ্রেস ছাত্র পরিষদের সভাপতি সৌরভ প্রসাদ তার এক সাংবাদিক সম্মেলনে কিছু দাবি জানান:
¤ মহামারি পরিস্থিতিতে NEET-JEE পরীক্ষা পিছাতে হবে।
¤ আইনের অপব্যবহার করে বিরোধীদের কর্মসূচী আটকে দেওয়ার ঘৃন্য চক্রান্ত
¤ আপামোর বাঙালীর প্রানের বিশ্বভারতী সম্পর্কে যে বিজেপী নেত্রী কুরুচিকর মন্তব্য করেছে তার তীব্র প্রতিবাদের পাশাপাশি আমি সেই বিজেপী নেত্রীকে বললো আপনি সোস্যাল মিডিয়ায় চোখ রাখুন, দেখুন কাদের নেতা নেত্রীরা বেশী সবান মাখা কেলেঙ্কারী জড়িত।
¤ ছাত্র পরিষদের মাতৃসদন মহাজাতি সদন অবিলম্বে ফিরিয়ে দেওয়া ও প্রাক্তন কেন্দ্রীয়মন্ত্রী, সর্বভারতীয় ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি প্রিয় রঞ্জন দাশমুন্সীর আবক্ষ মূর্তি স্থাপন সহ কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি দুর্নীতি মুক্ত রাখতে সরকারের কঠোর নজরদারী দাবীতে আজ এই প্রেসমিট করা হলো।

মুখ্যমন্ত্রীর কাছে আবেদন

ওয়েবডেস্ক,5 আগস্ট, কলকাতা: আজ পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য ছাত্র পরিষদ ত্রর পক্ষ থেকে মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যার্নাজিকে চিঠি লিখে অনুরোধ করলেন রাজ্য ছাত্র পরিষদের সভাপতি সৌরভ প্রসাদ৷ অাগামী ২০ শে অাগষ্ট ভারতবর্ষের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী প্রয়াত রাজীব গান্ধীর জন্মদিন ত্রবং ২৮ শে অাগষ্ট ঐতিহাসিক ছাত্র পরিষদ ত্রর প্রতিষ্ঠা দিবস, ১৯৫৪ সালের পর থেকে ত্রই দিনটি যথাযোগ্য মর্যাদা সহিত ছাত্র পরিষদ ত্রর কর্মীরা পালন করে থাকেন৷ রাজ্য সরকারের ঘোষণা অনুয়ায়ী ত্রই ২ দিন রাজ্য জুড়ে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে৷ অবিলম্বে ত্রই দুই দিন লকডাউন প্রত্যাহার করার দাবি রাখলেন৷

সরকারি নিয়ম মেনে উৎসব পালনের আবেদন

ওয়েবডেস্ক, ২৮শে জুলাই ২০২০, কলকাতাঃ ALL INDIA MINORITY FORUM সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করে ।সভাপতিত্ব করেন ALL INDIA MINORITY FORUM এর চেয়ারম্যান বিধায়ক ইদ্রিশ আলি ।প্রধান অতিথি ছিলেন কলকাতার নাখোদা মসজিদের ইমাম মৌলানা ক্বারী সফিক কাশমী ।বিশেষ অতিথি ছিলেন বামনপুকুর রামকৃষ্ণ /সারদা মিশনের মহারাজ স্বামী উওমানন্দ এবং বৌদ্ধ ধর্মের পন্ডিত ডঃ অরুন জ্যোতি ভিক্ষু ।
সভাপতির ভাষণে বিধায়ক ইদ্রিশ আলি বলেন, “আগামী ১লা আগষ্ট পবিত্র ঈদ (ঈদ – উল আযহা )।পৃথিবীর মুসলিমদের কাছে এটি দ্বিতীয় বৃহত্তম উৎসব ।তিনি মুসলিম সম্প্রদায়ের কাছে আবেদন জানিয়েছেন, ঈদ এমনভাবে পালন করুন যাতে অন্য সম্প্রদায়ের মানুষ কোন আঘাত না পান ।সরকারি নিয়ম মেনে এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে উৎসব পালন করার তিনি আবেদন জানান ।বিধায়ক ইদ্রিশ আলি আরও বলেন, মুখমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি যেভাবে করোনা ভাইরাস, আমফান ঘূর্ণঝড়ের মোকাবিলা করে রাজ্যকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন তা অত্যন্ত্য প্রশংসনীয় ।তিনি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর এবং বিজেপির তীব্র সমালোচনা করে বলেন, করোনা ভাইরাস মোকাবিলা থেকে শুরু করে সব ব্যাপারে কেন্দ্রেয়ী সরকার ব্যর্থ ।
কলকাতার নাখোদা মসজিদের ইমাম মৌলানা ক্বারী সফিক কাশমী প্রধান অতিথির ভাষণে বলেন, ” ইসলাম শান্তির কথা বলে ।তিনি বলেন ঈদ – উল – আযহা তথা কোরবানীর উৎসব তিনদিন যাবৎ পালিত হয়।মৌলানা সফিক কাশমী মুসলিম সমাজের কাছে আবেদন করেন, পশুকে মারধর করবেন না ।যথা সম্ভব চারদিক ঘিরে কোরবানী দিন ।কোন আবর্জনা রাস্তায় ফেলে রাখবেন না ।প্রয়োজনে আবর্জনা মাটির নিচে পুঁতে দেবেন ।মনে রাখবেন করোনার প্রাদূ’ভাব বাড়ছে তাই মাস্ক পরুন, সব বিষয়ে সতর্ক থাকুন ।
মহারাজ উওমানন্দজী বলেন, পশ্চিমবঙ্গে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির মাটি ।এখানে আমরা হিন্দু মুসলমান সকলে মিলে বাস করি ।সাম্প্রদায়িক শক্তির বিরুদ্ধে আমাদের সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে লড়তে হবে ।
রেভারেন্ড বিশপ অগিষ্টিন বলেন, যতদিন মমতা ব্যানার্জি মুখ্যমন্ত্রী থাকবেন ততদিন পশ্চিমবঙ্গে শান্তি বিরাজ করবে ।
অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন,স্বামী পরমানন্দ মহারাজ , হাজী কামরুদ্দিন মল্লিক, প্রমুখ ।

এবার আবেদন মুখ্যমন্ত্রীর কাছে

ওয়েবডেস্ক, 15 জুলাই, কলকাতা: সংক্রমণের হার ব্যাংক এ বেড়েই যাচ্ছে। ঐতিহাসিক বউবাজার ব্যাংক অফ ইন্ডিয়াতে আবার সংক্রমণ। বিভিন্ন ব্যাংকের শাখায় একের পর এক রেকর্ড সংক্রমণ।সেকথা চিন্তা করে সপ্তাহে একদিন ব্যাংক বন্ধ রেখে রাজ্যে সংক্রমণ কমানোর আর্জি নিয়ে এবার মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রীর কাছে পত্র লিখেছে AIBOC। সংগঠনের পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হয়েছে যে সকাল ১০ টা থেকে ৪ টের পরিবর্তে, ২ টো পর্য্যন্ত ব্যাংক চালু রাখার কথা। তারা আবার বলেছে। এ বিষয় নিয়ে AIBOC নেতৃত্ব মুখ্যমন্ত্রীকে টুইটও করেছেন যা AIBOC র tweet রেকর্ড ৬৫০ retweet ছাড়িয়ে গেছে বলে দাবি AIBOC/WB, সাধারণ সম্পাদক, সঞ্জয় দাস মহাশয়ের।

আমরা গর্বিতঃ সৌরভ

ওয়েবডেস্ক, ২৮ জুন, কলকাতাঃ ” ছাত্র পরিষদের দাবীকে মান্যতা দিয়ে আজ রাজ্য শিক্ষা দপ্তর এই নির্দেশিকা জারি করলো। দেরিতে হলেও সরকারের এই মানবিকতা উদয় হওয়ায় আমরা সরকার কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানাই। সারা দেশ জুড়ে NSUI এর তত্বাবধানে এই লড়াই চলছে এবং বিভিন্ন প্রদেশ ইতিমধ্যে আমাদের দাবীকে মান্যতা দিয়েছে, আজ পশ্চিমবঙ্গ সরকারের এই ঘোষনা NSUI তথা ছাত্র পরিষদের মুকুটে আরেকটি জয়ের পালক যুক্ত করলো। আমরা গর্বিত ছাত্র সমাজের অধিকার ছিনিয়ে আনতে পেরে, আজকের এই জয় শুধু ছাত্র পরিষদের নয়, এই জয় বাংলার আপামোর ছাত্র সমাজের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের জয়। এছাড়াও আমরা সরকারের কাছে বার বার চিঠি দিয়ে আবেদন করেছি যাতে কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেরই ফি-বৃদ্ধি এবং অপ্রয়োজনীয় ফি এই করোনা পরিস্থিতিতে স্থগিত রাখা হয়, কিন্তু শিক্ষামন্ত্রী থেকে মুখ্যমন্ত্রী এবিষয়ে অনুরোধ করছে। আমরা বলছি লিখিত নির্দেশিকা জারি করুন ।” আজ এক সাংবাদিক সম্মেলনে একথা জানান পঃবঃ রাজ্য ছাত্র পরিষদ এর সভাপতি সৌরভ প্রসাদ।

পাশ করানোর দাবী

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক, 10জুন,কলকাতা: স্নাতক-স্নাতকোত্তর,প্রযুক্তিসহ বাকি কোর্স গুলির সকল ছাত্র ছাত্রীকে বিনা পরীক্ষায় উত্তীর্ণ করার দাবীতে এবং কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিস মুকুবের আবেদন জানাতে আজ রাজ্যপাল সাক্ষাতের সময় দিয়ে বাতিল করায়, রাজভবনের সামনেই ধর্নায় বসেন পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য ছাত্র পরিষদের সভাপতি সৌরভ প্রসাদ। তিনি বলেন, অন্যান্য রাজ্যে বিশ্ববিদ্যালয় গুলি তাদের এই দাবী মেনে নিয়েছেন। পরে রাজভবনের অফিস থেকে ফোন করে আবেদন জানানোয় এবং শীঘ্রই পুনঃরায় সাক্ষাতের সময় দেবার আশ্বাস দেওয়ায় ধর্না তুলে নেওয়া হয়। প্রায় ২ঘন্টা রাজভবনের মূল ফটকের সামনে এই ধর্না চলে।

লড়াইয়ে ব্যাঙ্ক অফ বরোদা অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের

শুভাবরি ওয়েব ডেস্ক, ৩০ যে, কলকাতা : মুখ্যমন্ত্রী ত্রাণ তহবিলে আমফান আক্রান্তদের জন্য ১৫ লক্ষ টাকা অনুদান দেওয়ার সিদ্ধান্ত সহ আগামী ৩১ মে ব্যাঙ্ক অফ বরোদা অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে দক্ষিণ ২৪ পরগনার সুন্দরবন এলাকার গোসাবা থানার অন্তর্গত মন্মথ নগর, বিপ্রদাস পুর অঞ্চলে বেশ কয়েকটি ত্রাণ শিবির এর আয়োজন করা হয়েছে।

উপস্থিত থাকবেন এ আই বি ও সি এর রাজ্য সম্পাদক ও অন্যান্য গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানান এ আই বি এস ই এর রাজ্য সম্পাদক সঞ্জয় দাস।

সরকারের বিরুদ্ধে চার্জশিট

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক,২৮মে, কলকাতা: আমফান সহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের ন বছর পূর্তিতে রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ বুধবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারকে নয়টি বিষয়ের ওপর চার্জশিট দেন। তিনি রাজ্য সরকারের ব্যর্থতার বিরুদ্ধে সোচ্চার হন। সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি যে বিষয় গুলির ওপর চার্জশিট দিলেন তা হল:
করোণা সংকট- স্বাস্থ্য সংকট
আমফান মোকাবিলায় সরকারের ব্যর্থতা
রেশন দুর্নীতি
ভেঙে পড়া আইন-শৃঙ্খলা
ভেঙে পড়া অর্থনৈতিক ব্যবস্থা
ভেঙে পড়া শিক্ষা ব্যবস্থা
কৃষক সমস্যা
কাটমানি
হিন্দুত্ব বিরোধী
সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দেগে বলেন যে,” যখন সরকার করোনা ভাইরাস, আমফান ঝড় এবং পরিযায়ী শ্রমিকের বিভিন্ন সুবিধা অসুবিধা নিয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার দরকার ছিল তখন তা না নিয়ে মমতা সরকার রাজনীতি করে গেছে। ত্রাণ বিলি করতে গিয়ে বিজেপির কর্মীরা মার খাচ্ছেন। বিজেপির বিভিন্ন কার্যকর্তা সাংসদকে বিভিন্ন জায়গায় মানুষের সাহায্য করতে গিয়ে বাধা পেতে হয়েছে।বিদ্যুৎ বিভ্রাটের জন্য সরকার নিজেদের গাফিলতি কে ঢাকার জন্য সি ই এস সি কে দায়ী করছে। রাজ্যের বিভিন্ন নেতা মন্ত্রীরা বলছেন কেন্দ্রীয় সরকারের কাছ থেকে এখনও অনেক টাকা পাওয়া বাকি আছে কিন্তু 2009 সালে আয়লা ঝড়ের ক্ষতিপূরণের টাকার হিসাব এখনো পর্যন্ত রাজ্য সরকার কেন্দ্রীয় সরকারকে ঠিকঠাকভাবে দিতে পারেনি। “
করোনা রোগ নিয়ে বলতে গিয়ে দিলীপ ঘোষ বলেন ” আমাদের পশ্চিমবঙ্গে মৃত্যুর হার সবচেয়ে বেশি। বিভিন্ন রাজ্য কেন্দ্রীয় সরকারের আয়ুষ বিভাগের নির্দেশ অনুযায়ী কাজ করছে সে ক্ষেত্রে সেখানে বহু রোগী সুস্থ হয়ে উঠছেন কিন্তু পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার করোনা মোকাবিলায় আয়ুষ বিভাগকে কাজ করার অনুমতি দেয়নি।”

আগামী বছর বিধানসভা নির্বাচনের জন্য এখন থেকেই বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ প্রচার শুরু করে দিয়েছেন তা মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

নিঃশব্দ মানব সেবায় “পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য প্রতিবন্ধী সম্মিলনী”

শুভাবরি ওয়েব ডেস্ক, ১৫ মে, কলকাতা: পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য প্রতিবন্ধী সম্মেলনীর পক্ষ থেকে রাজ্যের সমস্ত জেলায় লকডাউন জনিত কারণে দুর্গত মানুষদের খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। কলকাতার মুকুন্দপুর প্রতিবন্ধী ভিলেজের প্রাঙ্গণ থেকে চার হাজার মানুষকে এই খাদ্য সামগ্রী কয়েক দফায় তুলে দেওয়ার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। সূত্রে প্রকাশ, সারা রাজ্যে পঞ্চাশ মেট্রিক টন চাল এবং আনুপাতিক হারে ডাল, আলু সোয়াবিন এবং কুড়ি হাজার হাত ধোয়ার সাবান তুলে দেওয়ার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।
উল্লেখ করা যেতে পারে, পশ্চিমবঙ্গের প্রাক্তন মন্ত্রী শ্রী কান্তি গাঙ্গুলি প্রতিষ্ঠিত এই সংগঠন দীর্ঘ বছর ধরে প্রতিবন্ধী মানুষের সাহায্যের জন্য বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে থাকে। পাশাপাশি প্রতিবন্ধীদের জন্য স্কুল এবং হাতে কলমে শিক্ষার বিভিন্ন ব্যবস্থাও এই প্রতিবন্ধী সম্মিলনী ভিলেজ থেকে করা হয়।
ইস্টার্ন বাইপাস এর পাশে আর এন টেগোর হসপিটাল এর লাগোয়া “পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য প্রতিবন্ধী সম্মিলনী” এইভাবে নিঃশব্দে সাধারণ মানুষের সেবায় কাজ করে চলেছে। কান্তি বাবুর সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে তার সুযোগ্য পুত্র সৌম্য গাঙ্গুলী এবং সহযোগীরা এই মহান কর্মযজ্ঞের সাথী।
অত্যন্ত প্রাসঙ্গিক এবং প্রশংসনীয়, এই সংগঠন এবং সংগঠনের যোদ্ধারা কোনভাবেই এই মহান কাজকে প্রচারের আলোতে আনতে চান না। তাই তাদের এই মহান উদ্যোগকে পাঠকের সামনে আনতে পেরে আমরা গর্বিত।




প্রকল্প ‘করুণা’


শুভাবরি ওয়েবডেস্ক, 5মে,কলকাতা: লকডাউন সময় বিগত কিছুদিনে প্রায় 15 হাজার মানুষকে প্রতিদিন খাওয়ানোর দায়িত্ব নিয়েছিলেন এরা। তারপর করোণা যুদ্ধে সামনের সারির যোদ্ধাদের হাত মজবুত করতে তারা স্বাস্থ্যকর্মী- পুলিশ এদের হাতে বিনামূল্যে তুলে দিলেন ফেইস শিল্ড। প্রকল্প্পের নাম করুনা।

যা সম্পূর্ণ গৃহেই তৈরি করা যায়। 10-12 জন মহিলা কে নিয়ে এই সম্পূর্ণ ঘরোয়া উপায়ে তৈরি হচ্ছে ফেস শিল্ড। এই কর্মকান্ডের নেপথ্যে যিনি রয়েছেন তিনি হলেন পঙ্কজ মালু। এবং তার সংস্থার নাম অ্যাক্টস ফাউন্ডেশন। স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা সদস্য পঙ্কজ মালু বলেন আপাতত তাদের এই প্রয়াস কলকাতার মধ্যে সীমিত রাখবেন। কেউ যদি ঘরোয়া উপায়ে ফেস শিল্ড তৈরি করতে চান সে ক্ষেত্রে তারা তাদের সাহায্য করবেন।

রক্তদানে ফিনান্সিয়াল আর্মি

শুভাবরি ওয়েব ডেস্ক, ৭ এপ্রিল, কলকাতা: একদিকে করোনার বিষাক্ত থাবা, অন্যদিকে বাড়তে থাকা গরমের সাথে রক্তের অভাব। এমন অবস্থায় আগামী ৯ তারিখ ‌অল ইন্ডিয়া ব্যাংক অফিসার্স কনফেডারেশন রক্তদান শিবিরের আয়োজন করছে কোঠারি হসপিটালে। যেহেতু করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে একসাথে বেশি সংখ্যক মানুষকে রক্তদানে অংশগ্রহণ করা নিষেধ, তাই ২০ জন সদস্য ঐদিন রক্ত দান করবেন বলে জানালেন সংগঠনের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সঞ্জয় দাস। ফিনান্সিয়াল আর্মিকে স্যালুট জানাই আমরা।

কাল থেকে খুলছে গ্রামীণ ব্যাংক শাখা গুলো

শুভাবরি ওয়েব ডেস্ক, ২৫ মার্চ, কলকাতা: সারা ভারত ব্যাংক অফিসার্স কনফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক সঞ্জয় দাস আজ জানালেন, আগামীকাল থেকে সমস্ত গ্রামীণ ব্যাংক শাখা গুলো অল্টারনেট দিনগুলোতে খোলা থাকবে। এর ফলে গ্রামীণ গ্রাহকদের কিছুটা চিন্তা মুক্ত করা যাবে বলে ওয়াকিবহাল সুত্র মনে করছেন। অবশ্য সর্বভারতীয় ব্যাংক অফিসারর্স কনফেডারেশনের এই নেতা সর্বসাধারণের কাছে আগেই অনুরোধ জানিয়েছিলেন, তারা যেন ক্যাশ টাকাতে লেনদেন কম করেন। এতে সংক্রমণের মাত্রা কম হবে। তবুও, সাধারণ মানুষকে চিন্তা মুক্ত করতে, বিশেষ করে প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষদের চিন্তা মুক্ত রাখতে ব্যাঙ্কের এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে সাধারণ মানুষ।

কাল থেকে পশ্চিম বঙ্গের 23 টি জেলার রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের 3649 টি গ্রামীন শাখা একদিন অন্তর খোলা থাকবে ।যার ফলে আরো কিছু মানুষ টোটাল লক ডাউনের আওতায় আসবে।
সঞ্জয় দাস। যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক।অল ইন্ডিয়া ব্যাংক অফিসার্স কনফেডারেশন।

“ত্বকেও টিবি রোগ হয়”

শুভাবরি ওয়েব ডেস্ক,১২ মার্চ, কলকাতা: শরীরের একটি বড় অংশকে আমরা বরাবর অবহেলা করে থাকি। চিকিৎসা বিজ্ঞানেও এই অংশটিকে নিয়ে যে খুব বেশি চিন্তাভাবনা বা আলোচনা সভা হয়েছে তার নজিরও নেই।
তবে ক্যালকাটা অ্যাসোসিয়েশন অফ প্রাক্টিসিং প্যাথলজিস্ট এবং ডার্মাটোলজি সোসাইটি অফ ইন্ডিয়ার যৌথ উদ্যোগে আজ এক সাংবাদিক সম্মেলনে বক্তব্য রাখলেন ডক্টর শ্রাবস্তী রায়, সভাপতি, ডক্টর শুভ্রা ধর, অর্গানাইজিং সেক্রেটারি এবং ডক্টর জ্যোতি নারায়ান।
ডক্টর শুভ্রা ধর বলেন, ডার্মাটোলজি নিয়ে আমাদের দেশে খুব কমই আলোচনা সভা হয়েছে। তাই আগামী ১৪ এবং ১৬ মার্চ কলকাতার একটি অভিজাত হোটেলে এই ধরনের একটি অনুষ্ঠান করতে পেরে আমাদের গর্ব বোধ হচ্ছে।
তিনজন ডাক্তারের বিশ্লেষণে জানা গেল রোগের বিষয়বস্তু। জানা গেল যে সাধারণ একজিমার চিকিৎসা দিনের-পর-দিন কুরিয়ে যখন কোনো ফল হয়নি। এমন রোগী ডাক্তারের কাছে আসার পরে পরীক্ষার করে জানা গেল, তার চামড়ায় টিবি রোগ ধরেছে। ত্বকেও টিবি রোগ হয়। পরবর্তীকালে টিভির সুচিকিৎসায় সেই রোগীর অসহনীয় একজিমার মতো রোগ থেকে মুক্তি পেয়েছেন।
ডক্টর শ্রাবস্তী রায় বলেন, ত্বকের সমস্যা থেকে শরীরের অন্যান্য রোগের সমস্যা আমাদের সামনে চলে আসে। অনুজ্জ্বল ত্বক থেকে একটি মানুষ অসুস্থ না সুস্থ সেটি ধরা যায় । তাই তাকে বিষয়টি আমাদের গুরুত্বের সঙ্গে মনে রাখা উচিত।

কথা রাখেননি মুখ্যমন্ত্রী

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক, 11 মার্চ,কলকাতা: ২০১৫ সালের ১৩ মার্চ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হকারদের জন্য অনেক প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন রবীন্দ্র সরোবর স্টেডিয়ামে। আজ ৫ বছর হয়ে যাবার পরেও তার একটি প্রতিশ্রুতিও পূরণ হয়নি। এমনটাই দাবি সাতটি ট্রেড ইউনিয়নের একক প্ল্যাটফর্ম “হকার যৌথ মঞ্চে”র।
আজ এক সাংবাদিক সম্মেলনে পক্ষ থেকে অসিতাঙ্গ গঙ্গোপাধ্যায় এই ক্ষোভ জানিয়ে বলেন, ভারতবর্ষে হকারদের সমস্যা দীর্ঘকালের। সেটির আইন পাস হয়ে যাবার পরেও দীর্ঘ পাঁচ বছর রাজ্য হকারদের জন্য কোন ব্যবস্থা করে উঠতে পারেননি। তাছাড়া মুখ্যমন্ত্রী পাঁচ বছর আগে যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন হকারদের জন্য তার কোনো প্রতিশ্রুতি তিনি পূর্ণ করেননি।
তিনি বলেন, আমরা কোন রাজনৈতিক আলোচনায় না গিয়ে শুধু এটাই চাইবো যে মুখ্যমন্ত্রীর হকার সুবিধার জন্য
যে ঘোষণা করেছিলেন, তিনি সেগুলো শুধু পূরণ করে দিন।
পাঁচ বছর পূর্তিতে আগামী ১৩ মার্চ কলকাতা সেন্ট্রাল মেট্রো স্টেশন থেকে তারা একটি মিছিল নিয়ে সেক্রেটারিয়েট বিল্ডিং-এ রাজ্যের নগর উন্নয়ন ও পৌর বিষয়ক মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমকে তাদের পাঁচ দফা ডেপুটেশন জমা দেবেন। তাদের দাবি গুলি হল: এনআরসি-এনপিআর-সিএএ এ রাজ্যে কার্যকর করা চলবে না, কেন্দ্রীয় হকার আইন অবিলম্বে রাজ্যে চালু করতে হবে, ১৩ মার্চ ২০১৫, মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি হকারদের দেওয়া প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়িত করতে হবে, উপযুক্ত পুনর্বাসন ছাড়া হকার উচ্ছেদ করা চলবে না এবং হকারদের উপর সব রকম জুলুম বন্ধ করতে হবে। সাংবাদিক সম্মেলনে আরেক সিটু নেতা নীলকমল চ্যাটার্জি বলেন, আমরা মেট্রো স্টেশন থেকে বেলা তিনটের সময় মিছিল করে সেক্রেটারিয়েট বিল্ডিং এর দিকে রওনা দেব। অবশ্যই যদি আমাদের পুলিশ সেদিকে যেতে দেয়।

সাংবাদিক সম্মেলনে এদিন অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সুদন্য নস্কর (ইউ টি ইউ সি), প্রদ্যুৎ নাথ (টি ইউ সি সি), অশোক সেনগুপ্ত (এ আই সি সি টি ইউ), শান্তি ঘোষ (এ আই ইউ টি ইউ সি) এবং আই এন টি ইউ সির সদস্য।

বাংলা নতুন বছরে আগেই মিষ্টিতে থাবা

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক, 11 মার্চ,কলকাতা: শীতকালে তালশাস সন্দেশ অথবা মাখা সন্দেশ অথবা ধরুন নলেন গুড়ের রসগোল্লা বাঙ্গালীর কাছে চিরকাল লোভনীয়। চলার পথে মিষ্টির দোকানের দিকে লোভাতুর দৃষ্টিতে তাকাবে না এমন বাঙালিও খুব কমই আছে। তাহলে একবার ফিরে দেখা যাক যারা এ মিষ্টিগুলো তৈরি করেন বা যারা মিষ্টিগুলো আমাদের সামনে উপস্থাপন করেন তাদের দিকে ।
অন্যান্য সামগ্রীর পাশাপাশি জিএসটি মিষ্টির ব্যবসাতে তো আগেই থাবা বসিয়েছে, এবার নতুন উপসর্গ । আজ এক সাংবাদিক সম্মেলনে পশ্চিমবঙ্গ মিষ্টান্ন ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি রবীন্দ্র কুমার পাল সংগঠনের অন্যান্য নেতৃবৃন্দের সাথে জানালেন নতুন বিপদের কথা। নতুন নিয়ম অনুযায়ী প্রত্যেকটি মিষ্টি ক্ষেত্রে তৈরির তারিখ এবং কত দিনের মধ্যে সেটি ব্যবহার করা যাবে তা লিখে রাখা আবশ্যক বলে জানিয়েছে ফেসাই (FESSI)। রবীন্দ্র বাবু বলেন, দুধের তৈরি জিনিস পচনশীল এবং অত্যন্ত স্পর্শকাতর। সে ক্ষেত্রে এই কাজটি করা বড় বড় মিষ্টান্ন বিক্রেতাদের পক্ষে সুবিধা থাকলেও রাজ্যে থাকা এক লক্ষ দশ হাজার মাঝারি ও ছোট মানের ব্যবসায়ীরা অসুবিধার সম্মুখীন হবে।


পাশাপাশি তিনি বলেন, কোনরকম আগাম সর্তকতা ও প্রশিক্ষণ ছাড়াই সেফটি নিয়ম চালু করে দেওয়া হয়েছে। এখন থেকে সেফটি নিয়ম ভাঙলে দোকান বন্ধ করে দেওয়া হবে। যে নিয়মটি সম্বন্ধে ব্যবসায়ী নিজেই কিছু জানেন না তাকে কি করে সে পালন করবে বলে তিনি প্রশ্ন তোলেন। নিয়মে বলা হয়েছে যে পেস্ট কন্ট্রোল এর একটি অর্ডার দোকানের সামনে রাখতে হবে। অন্যদিকে বিপদের বিষয় হচ্ছে যে পোকামাকড় মারার জন্য ওষুধ যদি মিষ্টির দোকানে ব্যবহার করা হয় তবে সেটি খাদ্যে বিষক্রিয়া সৃষ্টি করার একটা বিরাট সম্ভাবনা রেখে দেয়।
তিনি বলেন যে শহরের বিখ্যাত এবং বড় বড় কয়েকটি মিষ্টি বিক্রেতার দোকান দেখেই সামগ্রিকভাবে মিষ্টি বিক্রেতাদের উপর এইভাবে কোন নিয়ম চাপিয়ে দেওয়াটা একেবারে ঠিক কাজ নয়। সংগঠনের কোষাধ্যক্ষ সম্রাট দাস বলেন, গ্রামীণ ব্যবসায়ীদের থেকে তিনি গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি মতামত পেয়েছেন। যেখানে তারা বলেছেন যে দুধের মত সংবেদনশীল জিনিসে তৈরি মিষ্টি যে কোনো সময় নষ্ট হতে পারে যে কোনো প্রাকৃতিক কারণে । সরকারি নিয়মে বলা হয়েছে যে প্রত্যেকটি দোকানকে একটি ল্যাব রাখতে হবে কিন্তু ছোট ব্যবসায়ীদের পক্ষে একটি ল্যাব রাখা প্রায় অসম্ভব।
মোটের উপরে বাংলার নতুন বছর আসার আগেই বাঙালির প্রিয় খাদ্য মিষ্টি একরকম বিপদের মুখে পড়েছে। অন্তত ব্যবসায়ীদের আজকের এই সাংবাদিক সম্মেলন থেকে এটা বোঝা যাচ্ছে।

সাংবাদিক সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের কার্যকরী সভাপতি শৈলেন্দ্র কুমার পাল এবং সাধারণ সম্পাদক জয়ন্ত বরাট।

“জনগণনা ভবন” অভিযান

শুভাবরি ওয়েব ডেস্ক, ২৫ ফেব্রুয়ারি, কলকাতা: দেশজুড়ে চলতে থাকা এনআরসি এনসিআর এবং সি এএর বিরুদ্ধে আন্দোলনে রাজ্য বেশ কয়েক কদম এগিয়ে রয়েছে। তেমনি ভাবে আন্দোলনের অন্যতম একটি সংগঠন “জয়েন্ট ফোরাম এগেইনস্ট এনআরসি” আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি থেকে দক্ষিণ ২৪ পরগনার ক্যানিং, দেউলি বাজার থেকে বিকেল চারটে এক পদযাত্রা শুরু করবে।

এই পদযাত্রা দক্ষিণ এবং উত্তর ২৪ পরগনার বিভিন্ন অঞ্চল পরিক্রমা করে গ্রামীণদের মধ্যে এনপিআর সম্বন্ধে সচেতনতা তৈরি করতে চাইছেন। আজ এক সাংবাদিক সম্মেলনে সংগঠনের অন্যতম কর্ণধার প্রসেনজিৎ বোস জানালেন, এই পদযাত্রা উত্তর এবং দক্ষিণ ২৪ পরগনা বিভিন্ন অঞ্চল পরিক্রমা করে ৫ মার্চ বেলা একটায় জমায়েত করবেন বিধান নগর করুণাময়ী মোড় বাসস্ট্যান্ডে। সেখান থেকে তারা ‘ডাইরেকটোরেট অফ সেন্সাস অফিসে’ ধর্না দেবেন, যতক্ষণ পর্যন্ত না সেন্সাস অফিস থেকে তারা সম্মতিসূচক অর্থাৎ, এ রাজ্যে জনগণনার সাথে এনপিআর যুক্ত হচ্ছে না এমন প্রতিশ্রুতি পাচ্ছেন তারা আন্দোলন চালিয়ে যাবেন। আজকের এই সাংবাদিক সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ইমতিয়াজ আহমেদ মোল্লা, কবি এবং সমাজকর্মী মানিক মণ্ডল, দেবর্ষি চক্রবর্তী প্রমুখ।

দশ হাজার থেকে পাঁচ লাখের লক্ষ্যে

শুভাবরি ওয়েব ডেস্ক, ২৫ ফেব্রুয়ারি, কলকাতা: পরপর তিনবার দিল্লি বিজয়ের পর এবার পশ্চিমবাংলায় নিজেদের খুঁটি শক্ত করতে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের দল আম আদমি পার্টি এবার পশ্চিমবাংলায় সদস্যতা অভিযানের লক্ষ্য এগোচ্ছে।
আজ এক সাংবাদিক সম্মেলনে সংগঠনের পশ্চিমবাংলার কর্নধার জর্জ, নাসির হাসান, সহকারী সম্পাদক এবং মিডিয়া কর্নধার সাধক মন্ডল দলের আগামী দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেন। জর্জ বলেন, পশ্চিমবঙ্গে এখন ক্যাডারভিত্তিক দলের শাসন চলছে। কিন্তু আমাদের দল এককভাবে সাধারণ মানুষকে সাথে নিয়ে তাদের দৈনন্দিন সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে কাজ করার জন্য বদ্ধপরিকর। সাধক মন্ডল বলেন, আগামী এক মাস আমরা জন সম্পর্ক গড়ে তুলবো। সেই সাথে আমাদের সদস্যতা অভিযান চলবে। আজকের এই দিনটিতে প্রায় আটটি রাজ্যে একই সাথে সাংবাদিক সম্মেলন করে জনসমর্থন বাড়ানোর চেষ্টা করছে আম আদমি পার্টি। প্রসঙ্গত তিনি বলেন যে পশ্চিমবঙ্গ স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় অত্যন্ত পিছিয়ে পড়েছে। যেখানে দিল্লিতে তাদের সরকার গত তিনবার নির্বাচিত হয়ে জনসাধারণকে সর্বোচ্চ সুবিধা দিতে সমর্থ হয়েছে ।

পণের বিরুদ্ধে ইদ্রিশ


“ছেলেমেয়ের বিয়েতে পন নেওয়া এবং দেওয়া ইসলাম ধর্মে নিষিদ্ধ(হারাম)।এবার রাজ্য বাজেটে সকলেই খুশি, বিশেষ করে সংখ্যালঘু সম্প্রাদায়ের মানুষেরা খুব খুশি”।
12ই ফেব্রুয়ারী বসিরহাট লোকসভা কেন্দ্রের বাদুড়িয়া থানার পশ্চিম গুড়দহতে এক সভায় বলেন, অল ইন্ডিয়া মাইনোরিটি ফোরামের চেয়ারম্যান তথা উলুবেড়িয়া পূর্ব বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক ইদ্রিশ আলি।তিনি বলেন -সমাজকে বাঁচাতে পণপ্রথার বিরুদ্ধে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলন করা উচিত ।বহু মানুষ ছেলের বিয়েতে গরু কেনাবেচার মত টাকা নেয়।অথচ সৎ পথে থাকা বহু মানুষ তাদের মেয়ের বিয়ে দিতে পারছে না, এটা আমাদের সকলের কাছে লজ্জা।তিনি আরও বলেন পশ্চিমবঙ্গ সরকারের এবারের বাজেটে শুধু গরীবরাই নয় মধ্যবিত্ত মানুষরাও খুব খুশি । সংখ্যালঘু সম্প্রাদায়ের মানুষরা মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির প্রতি কৃতজ্ঞ।তিনি ধমে’ ধমে’ সমন্বয় গড়ে তোলার আহ্বান জানান । সাধারণ মানুষের কোন উন্নয়ন করেনি ।অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ফুরফুরা শরীফের পীরজাদা নইম সিদ্দিকী, এ কে ফারহাদ আশিক বিল্লা, মৌলানা আব্দুর রহমান ।
পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভায় মেনশনের সময় বিধায়ক ইদ্রিশ আলি তাঁর কেন্দ্র হাওড়া জেলার উলুবেড়িয়া পূর্ব বিধানসভা কেন্দ্রের বাউরিয়াতে বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের স্মৃতিতে একটি “নজরুল ভবন ” স্থাপন করার আবেদন জানান রাজ্য সরকারের কাছে।
উল্লেখ ঐ দিন তিনশো জন দুঃস্থ গরীব মানুষদের মধ্যে শীত বস্ত্র বিতরণ করা হয়।

প্রেরণায় মুখ্যমন্ত্রী

https://youtu.be/vR1jGrbnAKo


শুভাবরি ওয়েবডেস্ক্, 31 জানুয়ারী: হুগলি জেলার শ্রীরামপুরের কাকুলি নস্কর নিজের উদ্যোগে গড়ে তুলেছিলেন “আর কে কোলা বটল প্লান্ট”।
কিন্তু বাঁধ সাধলো তোলাবাজ । একরকম জোর করেই তার বাড়ি এবং ফ্যাক্টরিতে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছিলেন এলাকার এক তোলাবাজ। কাকলি নস্কর অঞ্চলের প্রশাসনের দ্বারস্থ হওয়ার পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রীর ও দ্বারস্থ হয়েছিলেন। তার অনুপ্রেরণায় এবং ডব্লিউ বি এফ সির সহযোগিতায় আবার ফিরে পেলেন হাতছাড়া হয়ে যাওয়া বটল প্লান্টটি। যদিও নতুন করে উৎপাদন শুরু হয়নি। তবুও এলাকার ২৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর অরুণ মুখোপাধ্যায়ের অকৃত্রিম সহযোগিতায় তার বাড়িতে থেকেই তিনি নতুন করে আবার পথ চলা স্বপ্ন দেখছেন। তিনি একজন মহিলা উদ্যোগপতি এবং রাজ্যের মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী তার প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়াতে তিনি আপ্লুত, এলাকার অন্যান্য শুভানুধ্যায়ীরাও।

ভারতীয় শিক্ষা মন্ডলের সেমিনার

বিশাল ঘোষ, শুভাবরি ওয়েবডেস্ক , ১৫ ডিসেম্বর, হাওড়া: নাগপুর সদর দফতর পরিচালিত গেরুয়া ব্রিগেডের মনে হয় ২০২১ সালের বিধান সভা নির্বাচনের আগে পশ্চিমবঙ্গে নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টায় রয়েছে। একচেটিয়া প্রায় ৪০টিরও বেশি সংস্থায় সাথে জাতীয়তাবাদ ও গেরুয়া করনের বিস্তার দেখে মনে হচ্ছে কেবল কলকাতায় নয়, পশ্চিমবঙ্গের গ্রাম ও মফস্বলের ভেতরেও এর বিস্তার ঘটেছে।
সম্প্রতি, ভারতীয় শিক্ষা মন্ডল/বি এস এমের দক্ষিণ বঙ্গ প্রান্ত, হাওড়ায় নতুন শিক্ষানীতি (২০১৯) এবং ভারতীয় শিক্ষানীতির নীতি এবং লক্ষ্য সম্পর্কিত একদিনের সেমিনারের আয়োজন করেছিল। এই অনুষ্ঠানের প্রধান বক্তা ছিলেন জাতীয় সাংগঠনিক সম্পাদক, শ্রী মুকুল কণিতকার, বি এস এম। এই সেমিনারে রাজ্যের অনেক শিক্ষাবিদ অংশ নিয়েছিল এবং ভারতীয় শিক্ষা নীতির প্রচারের জন্যে একটি ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে এই সেমিনারে বক্তারা বক্তব্য রাখেন। বি এস এম আরও এই জাতীয় সেমিনার এবং কর্মশালার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে এবং আগামী বছরগুলিতে পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে আরও অনেক বিদ্যালয়ের সাথে নিয়ে এমন সেমিনার করার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে।


উল্লেখ করা যেতে পারে, ভারতীয় শিক্ষা মন্ডল, যেটি আর এস এসের সাথে যুক্ত একটি সংগঠন, ১৯৬৯ সালে দেশের শিক্ষাব্যবস্থার সংস্কার এবং নির্দিষ্ট নীতিমালা এবং সেমিনার, ওয়ার্কশপ, পরীক্ষা-নিরীক্ষা ইত্যাদির মাধ্যমে ভারতীয় শিক্ষার বিকাশের জন্য প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।

আলোচনায় নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল

ওয়েবডেস্ক,13 ডিসেম্বর,কলকাতা: যাদবপুর শ্যামাপ্রসাদ সমিতি আয়োজিত নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল এর উপরে আজ এক আলোচনা চক্রে ভারতীয় জনতা পার্টির রাজ্যসভার সাংসদ ডা. স্বপন দাশগুপ্ত বলেন, পৃথিবীর সব দেশে উদ্বাস্তু ও অনুপ্রবেশের এর আলাদা সংজ্ঞা আছে, এখানে তাহলে কেন নয়? ধর্মীয় কারণে যারা এসেছে তাদের চিহ্নিত করা হয়েছে । সেটা কি সাম্প্রদায়িকতা? তিনি আরো বলেন, সিএবির সমর্থনে হাজরাতে মিছিল কেন আটকে দেওয়া হয়? আগে বলা হচ্ছিল এক কথা, এখন বলা হচ্ছে শুধু বাঙালি হিন্দুদের কেন নাগরিকত্ব দেওয়া হবে? মোদী সরকার উদ্বাস্তুদের স্বীকৃতি দিয়েছে। একবার যারা উদ্বাস্তু হয়ে বাংলাদেশ থেকে এসেছে তারা ভারতীয়। মুখ্যমন্ত্রী উদ্বাস্তু পরিবারের হয়েও বলে দিলেন তিনি কার দিকে?
প্রবীন সাংবাদিক এবং বিজেপি নেতা রন্তিদেব সেনগুপ্ত বললেন, আজকের দিনে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এই ধরনের সভা। চল্লিশ দশকের গোড়া থেকে বাংলাদেশে হিন্দুদের উপর অত্যাচার শুরু হয়েছে। সেসময় গঠিত হয়েছিল হিন্দু রক্ষীবাহিনী।দেশভাগের সময় কেউ জানতেও চাননি পূর্ব পাকিস্তানের হিন্দুরা কোন দেশে থাকতে চান। শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জী নেহেরুকে সংখ্যা লঘু বিনিময় প্রস্তাব দিয়েছিলেন। কিন্তু মানেননি। বাংলাদেশে খান সেনাদের লক্ষ্য ছিল হিন্দু নারী। প্রতি বছর হিন্দু শরনার্থী আসছে। ২৮% জনসংখ্যা কমে ৮% এসে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশে। নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলে শরণার্থীদের কথা বলা হয়েছে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিয়ম মেনে। ধর্মীয় কারণে মুসলমানরা এখানে আসেনি। জোর করে এটা প্রচার করে উত্তেজনা ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে। অনুপ্রবেশ কারীদের সাথে ভারতীয় মুসলমানদের মিলিয়ে দেওয়া হচ্ছে রাজনৈতিক স্বার্থে। তোষনের রাজনৈতিক কারণে রাজের মুখ্যমন্ত্রী তিন তালাক বিরোধী আইনকে সমর্থন করেন নি।
এদিনের এই আলোচনা সভায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন দিবাকর পাল, সম্পাদক,
চন্দন সেনগুপ্ত, বিজয়গড় রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের প্রধান, পল্টু দে সরকার, সহ সভাপতি।

বন্ধ ডাকল ওয়েলফেয়ার পার্টি

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক,১২ ডিসেম্বর ,কলকাতা ২০১৯ এর শেষ মাসে ওয়েলফেয়ার পার্টি অফ ইন্ডিয়া ১২ ঘন্টার বাংলাবন্ধ ডাকলো । আজ এক সাংবাদিক সম্মেলনে দলের রাজ্য সভাপতি মনসা সেন নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাসের দিনটিকে অর্থাৎ ৯ ডিসেম্বর দিনটিকে নিন্দা করছেন। তিনি বলেন, বিলের সব থেকে নাক্কারজনক দিকটি হলো, মুসলমানদের এই সংশোধনীর মাধ্যমে নাগরিকত্বের সুযোগ দেওয়া হবে না। ধর্মের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব ওয়েলফেয়ার পার্টি অফ ইন্ডিয়া মানবে না। তিনি আরো বলেন, ডিমানিটাইজেশন এর খারাপ ফল দেশ পেতে শুরু করেছে। দেশের জিডিপি নিচের দিকে নেমে গিয়েছে । তাই জাতির অস্তিত্বের জন্য আমরা ১৬ ডিসেম্বর সোমবার ১২ ঘণ্টার বনধ ডাকছি এবং এই বন্ধের ফলে একটি শ্রম দিবসের আত্মত্যাগ করতে সবাইকে অনুরোধ করছি। তিনি স্মরণ করিয়ে দেন যে গণতান্ত্রিক পথে এবং আইন মেনেই পালন করা হবে বাংলা বন্ধ । আজকের এই সাংবাদিক সম্মেলনে তার সাথে উপস্থিত ছিলেন দলের পশ্চিমবঙ্গ শাখার সাধারণ সম্পাদক সরোভর হাসান।


সাংবাদিক সম্মেলনের শেষে তারা প্রেসক্লাব থেকে ওয়াই চ্যানেল অবধি একটি প্রতিবাদি মিছিল সংগঠিত করেন।

শিক্ষামন্ত্রীর সাথে সাক্ষাৎ

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক,19নভেম্বর,কলকাতা: জামাআতে ইসলামী হিন্দের পশ্চিমবঙ্গ শাখার পক্ষ থেকে রাজ্য সম্পাদক মসিউর রহমানের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল আজকে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চ্যাটার্জী সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। জামাআতে ইসলামী হিন্দ রাজ্য জুড়ে মানবতার মুক্তি দূত হযরত মুহাম্মদ (সা:) শিরোনামে যে সীরাত ক্যাম্পেইন পরিচালনা করছে তারই অংশ হিসাবে এই সাক্ষাৎ। সেই সঙ্গে রাজ্যের ও দেশের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়। প্রসঙ্গক্রমে মুর্শিদাবাদ এ বিশ্ব বিদ্যালয়ের দ্রুত স্থাপনের কথা বলা হয়। সাক্ষাৎ এ উপস্থিত ছিলেন সহকারী জনসংযোগ সম্পাদক সুজাউদ্দিন আহমেদ, রাজ্য দপ্তর সম্পাদক সাবির আলী প্রমুখ। শেষ মুহাম্মদ (সা:) জীবনী গ্রন্থ শিক্ষামন্ত্রীর হাতে তুলে দেন মসিউর রহমান সাহেব।

বেতন বৃদ্ধিতে আপ্লুত শিক্ষকরা

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক,বৈশালী দে,6নভেম্বর, কলকাতা: সপ্তম বেতন কমিশনের সুপারিশ মেনে রাজ্যের সরকারি ও সরকারি সাহায্যপ্রাপ্ত কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ইউজিসি নির্ধারিত পে স্কেল চালু হওয়ার খুশিতে, রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী ও শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চ্যাটার্জী-র প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে আজ কলকাতা প্রেস ক্লাবে একটি সাংবাদিক বৈঠক ডাকেন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের সংগঠন ওয়েবকুপা( ওয়েস্ট বেঙ্গল কলেজে আ্যন্ড ইউনিভার্সিটি প্রফেসর এসোসিয়েশন)।

মঙ্গলবার নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়াম থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষণা করেছিলেন যে, ২০২০ সাল থেকে আমরা সপ্তম বেতন কমিশনের সুপারিশে ইউজিসি নির্ধারিত পে স্কেল চালু করবো।২০১৬ থেকে চার বছর অর্থাৎ ২০১৯ সাল পর্যন্ত আমরা তিন শতাংশ ইনক্রিমেন্ট দেব।এবং অতিথি শিক্ষকরা ৬০ বছর বয়সে অবসরের পরে ৩ লাখের বদলে ৫ লাখ টাকা করে পাবেন ও তাদের মাসিক বেতন ৫ হাজার টাকা করে বাড়ানো হবে।

গতকালের এই ঘোষণাকে কেন্দ্রকরে এই সংগঠনে প্রধান নেতৃত্ব দানকারী অধ্যাপিকা কৃষ্ণকলি বসু আজ বলেন সরকারের অর্থাভাব থাকা সত্ত্বেও মুখ্যমন্ত্রী যে সপ্তম বেতন পে কমিশনের ভিত্তিতে বেতন চালু করার কথা জানিয়েছেন তাতে আমরা তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি এবং তাঁর ঘোষণাকে সন্মান করছি। আজকের এই বৈঠকের উপস্হিত ছিলেন অধ্যাপক অসীম মন্ডল , অধ্যাপক মনিশঙ্কর মন্ডল,সুজয় ঘোষ সহ সংগঠনের অন্যান্য সদস্যরা।

এনআরসি হচ্ছেই— শাহনওয়াজ

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক, 5নভেম্বর,কলকাতা: সম্প্রতি বিজেপি মুখপাত্র এবং প্রাক্তন মন্ত্রী শাহনওয়াজ হুসেন তার কলকাতা সফরে এসে এক সাংবাদিক সম্মেলনে বলেন, পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি হচ্ছেই। তবে তার আগে ক্যাব করা হবে। বিজেপির রাজ্য সদর দপ্তরে অনুষ্ঠিত এই সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি বলেন, তিনি একজন মুসলমান এবং বিজেপির সাথেও রয়েছেন তাই আরএসএস বিজেপিকে সাম্প্রদায়িক বলার কোন কারণ নেই। তিনি অনুরোধ করেন, আগামী ১৬ নভেম্বর মহামান্য সর্বোচ্চ আদালত অযোধ্যা বিষয়ে যে রায়ই দেবেন, সেটা আমরা সবাই মেনে নেব। এটিকে কেন্দ্র করে যেন পশ্চিমবঙ্গ তথা সারাদেশে কোথাও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট না হয় ।
এদিন এই সাংবাদিক সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আফজল আলী চাঁদ, কনভেনার, রাষ্ট্রীয় মুসলিম মঞ্চ, পশ্চিমবঙ্গ, বিজেপি রাজ্য সম্পাদক, তুষার কান্তি ঘোষ, বিজেপি মাইনরিটি মোর্চা সভাপতি, আলী হোসেন প্রমুখ।

ছটে মেতেছে বাংলা

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক , 3 নভেম্বর, নম্রতা ঘোষ,কলকাতা: ছট পার্বণে মেতেছে বাংলা। গঙ্গার ঘাট, নদী তো বটেই তাছাড়াও পুকুর কিংবা লেকে ও বিভিন্ন জলাশয়েও করা হয়ে থাকে এই পূজো। দীপাবলির ঠিক ৬ দিন পর পালিত হয় ছট উৎসব। কার্তিক মাসের শুক্লা ষষ্ঠীতে পূজো করা হয় সূর্যদেবকে। তবে ছট পূজোর প্রাক পার্বণ শুরু হয় দিওয়ালির ৪ দিন পর। ছট পূজোয় কোনো মূর্তি পূজিত হয় না। ছট পূজোর ব্রত খুবই কঠোর। টানা তিনদিন ব্রত চলে। প্রথম দুদিন অর্থাৎ চতুর্থীর দিন সারাদিন উপবাসের পর সন্ধেবেলা ঘিয়ে রান্না করা খিচুড়ি ও কুমড়ো খাওয়া হয়ে থাকে এবং পঞ্চমীর দিন সারাদিন উপবাসের পর সন্ধেবেলা ক্ষীর ও লুচি খেতে হয়। এবং অবশেষে ষষ্ঠী, অর্থাৎ ছট উৎসবের দিন সারাদিন নির্জলা উপবাস থেকে বিকালে সূর্যাস্তের সময় সূর্যদেব কে আরাধনার পর বিভিন্নরকম প্রসাদি(ফল, কলার কাদি, ঠেকুয়া, মিষ্টি, ক্ষির) দিয়ে সূর্যদেবকে অর্ঘ্য নিবেদনের মধ্য দিয়ে পূজোর সুপ্রপাত হয়, এবং পরের দিন অর্থাৎ সপ্তমীর ভোরে সূর্যোদয়ের সময় সূর্যদেবকে আরাধনা করে প্রসাদি দিয়ে অর্ঘ্য নিবেদনের পর জল পান করে উপবাস শেষ করতে হয়। মূলত সূর্যদেবকে উপাসনার মধ্য দিয়ে সর্বকামনা পূর্তির আরাধনা করে থাকেন।

মূলত বিহার, ঝাড়খণ্ড, উত্তর প্রদেশে ছট পূজোর প্রচলন বেশি লক্ষ্য করা যায় তবে বর্তমানে প্রায় গোটা ভারতেই ছড়িয়ে পড়েছে ছট পূজো এবং প্রবাসী ভারতীয়দের মাধ্যমে ধীরে ধীরে বিদেশেও এই পূজোর প্রচলন হয়েছে।

                    

নিঃশব্দের অধিকারে সরব

লিসা দাস, শুভাবরি ওয়েবডেস্ক, ২২ সেপ্টেম্বর: সামনে কালীপুজো, আলোর উৎসব। কিন্তু আলোর নিচের অন্ধকারের মতই আলোর বিপরীতে থাকে অনেক আশঙ্কা—— বাজির শব্দ, কান ফাটানো ডি-জে’র আওয়াজ এবং বাজির বারুদের প্রকোপে মাত্রারিক্ত বায়ুদূষণ । প্রশাসন শব্দের মাত্রা নিয়ন্ত্রণের উপর কড়া নজর রাখলেও ফাঁক ফোকর থেকেই যাচ্ছে দৃষ্টি এড়িয়ে। শব্দবাজি নিষিদ্ধ হলেও বাজারে তা অনায়াসে পাওয়া যাচ্ছে। কড়া নির্দেশ আছে রাত আটটার পর থেকে শব্দ নিয়ন্ত্রিত রাখার তবুও রাত দশটার পর প্রায় মধ্যরাত পর্যন্ত চলতে থাকে শব্দের তাণ্ডব। আজ এক সাংবাদিক সম্মেলনে সংবাদমাধ্যমের সামনে বিষয়টি জানালেন “সবুজ মঞ্চের” পক্ষ থেকে পরিবেশবিদ নব দত্ত।
প্রতিবছর বহু অভিযোগ আসে কিছু ক্ষেত্রে সুরাহা হয়, কিছু ক্ষেত্রে হয় না। অনেকক্ষেত্রে দেখা যায় মানুষ ভীতির কারণে সরব হতে চান না। কারণ,পুজো কমিটি বা ক্লাবগুলির অনেকের মাথায় থাকে রাজনৈতিক কোনো দল বা ব্যক্তির ছত্রছায়া। যার মধ্যে থেকেই তারা চালায় তাদের তাণ্ডব। বললেন বিশিষ্ট আইনজীবী গীতানাথ গঙ্গোপাধ্যায়। এক্ষেত্রে মানুষকে তিনি কয়েকটি বিষয় বিশেষভাবে সচেতন হতে বলছেন;

  • রাত আটটার পর ৬৫ ডেসিবেলের বেশি জোর কোনো প্রকার শব্দ নিষিদ্ধ। বাজি বা মাইক কোনো কিছুই মাত্রাতিরিক্ত নিষিদ্ধ। অভিযোগ জানানো যেতে পারে স্থানীয় থানায়, রাজ্য দূষণ পর্ষদে, অথবা সবুজ মঞ্চের যোগাযোগ নম্বরে।
  • হসপিটাল এলাকাগুলি এমনিতেই শব্দ নিষিদ্ধ এলাকা। তাই কোনো প্রকার শব্দ জনিত সমস্যার সৃষ্টি হলেই অবিলম্বে অভিযোগ জানানো প্রয়োজন।

*অভিযোগ জানানোর জন্য ভীতির কোনো কারন নেই। নিজের পরিচয় না দিলেও শুধু সঠিক এলাকা উল্লেখ করলেই পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

পলিউশন কন্ট্রোল বোর্ড বা পুলিশি ব্যবস্থা ছাড়াও সবুজ মঞ্চের হেল্পলাইনে যোগাযোগ করা যেতে পারে। ২৭ অক্টোবর সন্ধ্যা ৬ টা থেকে পরের দিন সকাল ৬টা পর্যন্ত হেল্পলাইন গুলো খোলা থাকবে ।

সবুজ মঞ্চের যোগাযোগ নাম্বার গুলি হল-
কলকাতা- 9831318265/9432209770
হাওড়া(শহর)-8420494980
হাওড়া (জেলা)- 9064570985
হুগলি- 9883325009/801558644
নদিয়া-9593584149/9732680262
দক্ষিণ দিনাজপুর- 7363033937
কাঁথি- 6297527210

অভিযোগ পাওয়া মাত্রই প্রশাসনিক সাহায্য পাওয়া যাবে এবং সবুজ মঞ্চের পক্ষ থেকে একাধিক পর্যবেক্ষক দলও কালীপুজোর দিন এলাকা পরিদর্শন করবেন এবং অবস্থা অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবেন।

আলিপুরে বিক্ষোভ কর্মসূচি

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক,21অক্টোবর,কলকাতা: হাওড়া সিটি পুলিশ এলাকায় ট্রাফিক পুলিশের জুলুম, হয়রানি, মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে ট্যাক্সি অপারেটরর্সদের সংগঠন সেখানকার পরিষেবা বয়কটের ডাক দিয়েছিল। যার পরিপ্রেক্ষিতে গত ২৪ সেপ্টেম্বর উপনগরপাল (পরিযান) সংগঠনের সাথে বৈঠক করেন। কিন্তু তা সত্ত্বেও অবস্থার কোনো পরিবর্তন না হওয়ায় আগামী ১১ নভেম্বর বেলা ১ টায় হাওড়া স্টেশন ট্রাফিক পুলিশ গার্ড এর অফিসের সামনে এক বিক্ষোভ প্রদর্শনের আয়োজন করেছে ওয়েস্ট বেঙ্গল ট্যাক্সি অপারেটরর্স কোঅর্ডিনেশন কমিটি।
এছাড়াও, এই সংগঠন থেকে বারবার অভিযোগ এবং অনুরোধ সত্ত্বেও কলকাতা অঞ্চলের ট্রাফিক পুলিশ ট্যাক্সি চালকদের কাছে রাজ্য সরকার অনুমোদিত দূষণ নিয়ন্ত্রণ সংস্থা থেকে প্রাপ্ত শংসাপত্র থাকলেও তা অস্বীকার করছে এবং বেআইনিভাবে মামলা দায়ের করছে। এর প্রতিবাদে আগামীকাল অর্থাৎ ২২ অক্টোবর আলিপুর Anti-pollution সেলের সামনে বেলা একটায় বিক্ষোভ প্রদর্শন করবেন বলে জানালেন ওয়েস্ট বেঙ্গল ট্যাক্সি অপারেটরর্স কোঅর্ডিনেশন কমিটির আহবায়ক এবং ন্যাশনাল ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়ান রোড ট্রান্সপোর্ট ওয়ার্কার্স এর সম্পাদক নওল কিশোর শ্রীবাস্তব।
উল্লেখ করা যেতে পারে দীর্ঘ সময় ধরে এই সংগঠন ট্যাক্সি অপারেটরর্সদের বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে আন্দোলন সংগঠিত করে এসেছে।

প্রতিবাদে এবেকা

২৭ সেপ্টেম্বর,শুভাবরি ওয়েবডেস্ক, কলকাতা : অল বেঙ্গল ইলেকট্রিসিটি কনজিউমার্স অ্যাসোসিয়েশন—এবেকা, ক্রমবর্ধমান বিদ্যুৎ মাশুল বৃদ্ধি এবং ৫০ শতাংশ বিদ্যুতের দাম কমানোর দাবিতে তাদের আগামী কর্মসূচি ঘোষণা করলেন। এ প্রসঙ্গে দলের সাধারণ সম্পাদক প্রদ্যুৎ চৌধুরী বলেন, এম ভি সি এ-র নামে সিইএসসি ২৯ পয়সা করে কনজ্যুমারদের থেকে আদায় করে চলেছে। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন গত ১১ সেপ্টেম্বর একটি রাজনৈতিক দলের বিক্ষোভকে কেন্দ্র করে বিদ্যুতের দাম কমানোর এক আন্দোলন প্রচারের আলোয় আসলেও এই দলেরই মূল সংগঠন 2003 সালের বিদ্যুৎ বিল ২০০৩-এর জন্য দায়ী। তিনি বলেন, বিদ্যুৎ বিল ২০১৮ তে এমনভাবে আইন করা হয়েছে যে রাজ্য সরকার চাইলেও কেন্দ্রের নির্দেশ ছাড়া বিদ্যুৎ মাশুল তারা কমাতে পারবেন না।
এরই প্রতিবাদে এবং ছয় দফা দাবিতে আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর কলকাতার সি ই এস সি-র সদর দপ্তর ভিক্টোরিয়া হাউস অভিযান কর্মসূচি পালন করতে চলেছেন। সেই দিন তারা সি ই এস সি-র ম্যানেজিং ডিরেক্টর এর কাছে ডেপুটেশন জমা দেবেন বলে তিনি জানান। তিনি দাবি করেন, ২০১৬-১৭ সাল থেকে বিদ্যুতের মাশুল বাড়েনি, সেটা তাদের দীর্ঘকালীন আন্দোলনের ফসল। যদিও ৫০% মাশুল কমানোর আন্দোলন প্রধান আন্দোলন। এছাড়া, কৃষিতে বিনামূল্যে বিদ্যুৎ, সি ই এস সিতে সার্ভিস চার্জ কমানো, দারিদ্রসীমার নীচে গ্রাহকদের ন্যূনতম দামে ৫০ ইউনিট বিদ্যুৎ দিতে হবে।

দ্বিশততম জন্মবার্ষিকী উদযাপন অনুষ্ঠান

বৈশালী দে, শুভাবরি ওয়েবডেস্ক,২০ সেপ্টেম্বর, কলকাতা : বর্তমানে শুধু মূর্তি নয়, আক্রান্ত তার ভাবমূর্তিও। তাই এবার বিদ্যাসাগরের দ্বিশততম জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানায়, বিদ্যাসাগর দ্বিশততম জন্মবার্ষিকী উদযাপন কমিটি।

আজ কমিটির তরফে সাংবাদিকদের জানানো হয়, আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর থেকে তাদের অনুষ্ঠান শুরু হতে চলেছে। বিদ্যাসাগরের শিক্ষা-ভাবনা, নারী শিক্ষা, বাংলা ভাষার ক্ষেত্রে তার অবদান, সমাজ প্রগতির স্বার্থে তার চিন্তাধারা আরো একবার সমাজের নানা প্রান্তে ছড়িয়ে দেওয়াই তাদের মূল লক্ষ্য।

কমিটির তরফে গ্রহণ করা কর্মসূচিগুলোর মধ্যে কয়েকটি হল- বিদ্যাসাগরের কর্মজীবন নিয়ে বাংলা হিন্দি ও ইংরেজী এই তিনটি ভাষায় বই প্রকাশিত হবে, ছোটদের জন্য একটি বই ও দ্বিশততম স্মারক গ্রন্থ প্রকাশিত করা হবে। এছাড়া ছবি ও কথায় তাঁর জীবন ও কর্মকান্ড নিয়ে চিত্র প্রদর্শন করা হবে, তার নামে একটি গবেষণা কেন্দ্র ও সংগ্রহশালা স্থাপন করা হবে।

আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর সকালে, রাষ্টগুরু সুরেন্দ্রনাথ পার্কে বিদ্যাসাগরের মূর্তিতে মাল্যদান করে এই কর্মসূচির শুভ সূচনা করা হবে এবং তা শুধু মহানগরীতেই নয়, আরো কয়েকটি জেলাতেও অনুষ্ঠান উপলক্ষে শোভাযাত্রা, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক কর্মসূচির আয়োজন করা হবে জানানো হয়।

অবশেষে মুক্ত

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক, ১১ সেপ্টেম্বর, বৈশালী দে, কলকাতাঃ দীর্ঘ্য ১৩ বছর পরে নিজের পক্ষে রায় পেলেন বিশিষ্ট সমাজসেবী ও মাসুম এর কর্ণধার কিরীটি রায়। আজ কলকাতা প্রেস ক্লাবে কোর্টের রায়ের প্রতিলিপি দেখিয়ে একরাশ হতাশা ব্যক্ত করলেন এই প্রবীন সমাজকর্মী। সাথে ছিলেন দীর্ঘ্যদিনের সাথী আধ্যাপিকা মীরাতুন নাহার, নব দত্ত, বোলান গঙ্গোপাধ্যায়, ডা. বিনায়ক সেন প্রমুখ।
২০০৮ এর জুন মাসের একটি জন শুনানিকে কেন্দ্র করে এই মামলার রায় ঘোষণার ক্ষেত্রে সুপ্রিম কোর্টের অবদানকেই এখানে প্রাধান্য দিলেন মাসুমের কর্ণধার কিরিটি রায়। তিনি বলেন, বাম শাসনের সাথে বর্তমান শাসক দলের কোনো পার্থক্যই তিনি দেখতে পাচ্ছেন না।
তবে একটি জন শুনানিকে কেন্দ্র করে যেভাবে মাসুমের কর্মকর্তা এবং তাদেরকে আইনের প্যাঁচে দীর্ঘ ১৩ বছর থাকতে হল সেটিকে তিনি বাম সরকারের প্রথম ঘৃণ্য ঘটনা বলে বর্ণনা করেছেন। তিনি আরো বলেন, এখনো পর্যন্ত ৯ জন মাসুমের কর্মকর্তার বিরুদ্ধে এ রাজ্যে ১৩ টি কেস করা হয়েছে। অথচ তারা বিভিন্নভাবে নির্যাতিত মানুষের কথাই বারবার তুলে ধরে এসেছেন। ছিটমহলবাসীদের নাগরিকত্ব প্রদানের বিষয়ে তিনি বলেন, কেন্দ্র এবং রাজ্য, বাংলাদেশ সরকারের সাথে আলোচনা করেই তাদের নাগরিকত্ব দেবেন বলে স্থির করেছিল। কিন্তু বাস্তবে সেটি এখনো সম্পন্ন হয়নি।
তবে ১৬ আগস্ট ২০১৯ সালে দেশের সর্বোচ্চ আদালতের আদেশের ফলে সিটি সিভিল কোর্ট যেভাবে কিরিটি রায় এবং অন্যান্যদের ডিসচার্জ সার্টিফিকেট দিলেন, তাতে কিন্তু আইনের প্রতি বিশ্বাস মানুষের আরও বাড়িয়ে দিলো। যদিও মাঝে পেরিয়ে গেছে দীর্ঘ ১৩ টি বছর।

বৃদ্ধাশ্রমের পরিণত হয়েছে সরকারি দপ্তর
–দেবাশীষ

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক,3সেপ্টেম্বর,কলকাতা: ১ জানুয়ারি ২০১৬ থেকে বেতন সংশোধন, কেন্দ্রীয় হারে মহার্ঘ ভাতা, বদলির সন্ত্রাস রদ সহ ৫ দফা দাবিতে ১২ সেপ্টম্বর ২০১৯ সকাল ন’টা থেকে সরকারি আধা সরকারি কর্মচারী, শিক্ষক, শিক্ষা কর্মীদের যৌথ সংগ্রামী মঞ্চ কলকাতা পুরসভার মূল ফটকের সামনে অনশনে বসবেন। আজ এক সাংবাদিক সম্মেলনে সংগঠনের যুগ্ম আহ্বায়ক দেবাশীষ শীল বলেন, রাজ্য সরকারি দপ্তরগুলো একপ্রকার বৃদ্ধাশ্রমে পরিণত হয়েছে। হাজার হাজার বেকার যুবক যেখানে চাকরির জন্য হন্যে হয়ে ঘুরছে, সেখানে অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মীদের পুনর্নিয়োগ হচ্ছে। অত্যন্ত অনৈতিকভাবে গ্রুপ ডি কর্মচারীদের তাদের বাসস্থান থেকে অনেক দূরে ট্রান্সফার করা হচ্ছে। আদতে সরকারি নিয়ম অনুযায়ী তাদেরকে তাদের ইচ্ছেমত জায়গায় পনেরো কিলোমিটারের মধ্যেই বদলি করা যেতে পারে। তিনি আরো বলেন, রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মাঝে মাঝে বলছেন অন্য রাজ্যে পেনশন বন্ধ হয়ে গিয়েছে। আদতে পেনশন বন্ধ হয়নি। ত্রিপুরা রাজ্য সহ বেশ কয়েকটি জায়গায় গত ১ অক্টোবর ২০১৮ থেকে যারা চাকরিতে ঢুকেছেন তারা নতুন নিয়মে পেনশন পাবেন। তিনি দাবি করেন, সংগঠনের যৌথ মঞ্চ আগামী ১২ তারিখ প্রত্যেক জেলায় তাদের “দাবি ব্যাজ” পড়ে বিক্ষোভ আন্দোলন করবেন।
পাবলিক সার্ভিস কমিশনের অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারী বিপুল রায় বলেন, মুখ্যমন্ত্রী যখন কাটমানিকে সরিয়ে স্বচ্ছতা আনতে চাইছেন, তখন প্রশাসনিক অন্য ক্ষেত্রগুলোতে এবং বদলির ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা কেন আনছেন না?

পরিবেশ ছাড়পত্র ছাড়াই চলছে গাছ কাটা

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক,19আগস্ট,কলকাতা: বীরভূম আদিবাসী গাঁওতা(খয়রাশোল ব্লক কমিটি) এবং সেভ ডেমোক্রেসির পক্ষ থেকে এক যৌথ সাংবাদিক সম্মেলনে আদিবাসী গাঁওতার সংযোজক সুনিল সোরেন এমনই বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন। তিনি বলেন, মুক্তমুখ কয়লা খনি খননের জন্য অধিকাংশ গাছ কাটা প্রায় সম্পন্ন। এক্ষেত্রে সরকারের কাছে আবেদন করা সত্ত্বেও কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। আসলে আদিবাসীরা মূলত শাল এবং কেন্দু পাতা, জঙ্গল থেকে পাওয়া যায়, তাই দিয়ে জীবিকা নির্বাহ করেন। তিনি অবিলম্বে কয়লা খনির কাজ বন্ধ রাখার আবেদন জানান। তিনি দাবি করেন ২০১৬ সালে পাঁচটি আদিবাসী গ্রামকে এভাবেই খালি করে কয়লা খাদান খনন করা হয়েছিল। তিনি আক্ষেপ করে বলেন, প্রশাসনের কর্তব্য হচ্ছে আদিবাসীদের রক্ষা করা। কিন্তু বাস্তবে তারা মাফিয়া এবং মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানি গুলি কে সাহায্য করছে। কলকাতা কর্পোরেশনের মেয়র এবং বিশিষ্ট আইনজীবী বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্য বলেন, বর্তমানে একটা আদিবাসীদের জমি হরফ করার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। দেশের অন্যান্য জায়গাতেও এই কাজ চলছে। তবে কোন মূল্যেই আদিবাসীদের জমি থেকে উচ্ছেদ করা যাবে না। সে ক্ষেত্রে আদিবাসীদের জন্য যে নির্দিষ্ট আইন রয়েছে সেটি চালু করতে হবে।
সুপ্রিম কোর্টের প্রাক্তন বিচারপতি অশোক গাঙ্গুলি বলেন, মা মাটি মানুষের সরকার থাকা সত্ত্বেও কিভাবে ১০১ একর জঙ্গল কেটে আদিবাসীদের উচ্ছেদ করে মুখ কয়লা খনি করার চেষ্টা চলছে। তিনি আরো বলেন, পরিবেশ সংক্রান্ত ছাড়পত্র পেতে গেলে প্রয়োজন হয় গণশুনানির, এক্ষেত্রে সেটিও করা হয়নি। সর্বতোভাবে দেখা যাচ্ছে কেন্দ্র এবং রাজ্য সরকার উভয়ই এই আদিবাসীদের দুরবস্থার জন্য দায়ী। সেভ ডেমোক্রেসির সম্পাদক চঞ্চল চক্রবর্তী বলেন, এই বিষয় নিয়ে আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর এর পরে বাম, কংগ্রেস এবং সেভ ডেমোক্রেসি একত্রিতভাবে আন্দোলনের পথে হাঁটবে। তিনি আরো বলেন, আগামী ডিসেম্বর মাসে এক বিশাল আদিবাসী জনসমাবেশের আয়োজন করা হচ্ছে কলকাতা শহরে। তবে তিনি স্পষ্ট করেন, আন্ডারগ্রাউন্ড মাইনিং এর বিপক্ষে তারা নন, যদি সেখানে আদিবাসীদের স্বার্থ রক্ষা করা যায়।
বীরভূম আদিবাসী গাঁওতা খয়রাশোল ব্লকের পক্ষ থেকে এদিন সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন মহিলা নেত্রী মুন্নি মুর্মু, রঞ্জিত হাঁসদা প্রমূখ।

https://youtu.be/sKutUty78t4

ধর্মঘটের পথে ট্রাক মালিকরা

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক,17আগস্ট,কলকাতা:

আগামী ১৯ আগস্ট থেকে সারা পশ্চিমবঙ্গে অনির্দিষ্টকালীন ট্রাক ধর্মঘট করার সিদ্ধান্ত নিল ফেডারেশন অফ ওয়েস্ট বেঙ্গল ট্রাক অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশন। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সুভাষ চন্দ্র বোস বলেন, আর্থিক মন্দার প্রভাবে পশ্চিমবঙ্গ সহ সমগ্র ভারতে পরিবহন ব্যবস্থা বিপর্যস্ত। তার সাথে চলছে কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারের বিভিন্নভাবে, বিভিন্ন পরিবহন সম্পর্কিত জিনিসের মূল্য বৃদ্ধি। তিনি বলেন, ওভারলোড এবং পুলিশি জুলুমের প্রতিবাদে তারা ২০১৮ জানুয়ারি মাসে একটি ধর্মঘট ডেকেছিল। কিন্তু পরিবহনমন্ত্রী অনুরোধে ৮ জানুয়ারি তাড়া ধর্মঘট থেকে পিছিয়ে আসে।
কিন্তু এখনো সেই সমস্যা চলছে। বারবার তারা রাজ্যপাল, মুখ্যমন্ত্রী এবং পরিবহন মন্ত্রীর কাছে আবেদন করেও ফল পাননি।সুভাষ বাবু বলেন, তারা মূলত: ছটি দাবিতে এই ধর্মঘট ডেকেছেন। দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারের মোটর ভেহিকেলসে এক্সেল লোড চালু করা, পুলিশি অত্যাচার বন্ধ করা, লোডিং পয়েন্ট থেকে ওভারলোড বন্ধ করা, ভারত সরকারের পক্ষ থেকে থার্ড পার্টি ইন্সুরেন্স প্রিমিয়াম বাড়ানো বন্ধ করতে হবে প্রভৃতি।
আজকের সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ক্যালকাটা গুডস ট্রান্সপোর্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সুনীল আগারওয়াল, ফেডারেশনের যুগ্ম সম্পাদক সজল ঘোষ প্রমুখ। এখন বিষয়টি দেখার যে এই ধর্মঘট বন্ধ করার জন্য সরকার দাবিগুলির কিছু অংশ মেনে নেয়, নাকি শুধু মাত্র সান্তনা বাক্য দিয়ে ধর্মঘট বন্ধ করে দেয়। তবে যাই করুক দু’পক্ষের সদর্থক পদক্ষেপ না থাকলে সাধারণ মানুষই ভুক্তভোগী হবে।

পশ্চিমবঙ্গ দমকলে রাষ্টপতি পুরস্কার

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক,17আগস্ট,হুগলি পলাশ পাত্র:

ভালো কাজ করার জন্য পশ্চিমবঙ্গের দমকল বিভাগের চারজন কর্মী রাষ্টপতি পুরস্কার পেলেন। তাঁরা হলেন -তপন বোস, তমলুক ফায়ার স্টেশন পূর্ব মেদিনীপুর জেলা, শান্তি রঞ্জন দে, কৃষ্ণনগর ফায়ার স্টেশন নদীয়া জেলা, সুজিত কুমার বেরা, শ্রীরামপুর ফায়ার স্টেশন হুগলী জেলা, কুশ কুমার দাস, ফলতা ফায়ার স্টেশন, দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা জেলা।
গত ১৫-ই আগস্ট বৃহস্পতিবার স্বাধীনতা দিবসের দিন পশ্চিমবঙ্গ দমকল বিভাগের ডি জি জগমোহন সাংবাদিকদের একথা জানান। তিনি বলেন ভালো কাজ করা পরিশ্রমের সাথে সাথে নিজের সাহসিকতাও বিশেষ পরিচয় দেওয়া। তিনি কর্মীদের ভালো কাজের সাথে সাথে পশ্চিমবঙ্গ দমকল বিভাগের পরিকাঠামোর উন্নয়ন তথা নয়া উদ্যোগের বিষয়ে বিশেষ কিছু বার্তা দেন। যেমন- ড্রোন- ক্যামেরা, রোবর্ট, রার্ডার, ফায়ার পলস্, বিশেষ ওয়াটার ট্রায়ার সহ অত্যাধুনিক অগ্নি-নির্বাপনের সাজ-সরঞ্জামের ব্যবস্থা করা। এছাড়াও বাঙালির মহৎসব দূর্গাপূজা-কে মাথায় রেখে বিশেষ কিছু পূজা কমিটির কর্মীদেরকে ফায়ার ফাইটিং -এর ট্রেনিং-এর ব্যবস্থা করবেন বলে জানান। সর্বপরি বলা যায় পশ্চিমবঙ্গের দমকল বিভাগ বিগত কয়েক বছরের তুলনায় তাঁদের কর্মী থেকে শুরু করে পরিকাঠামো গত দিক গুলিই বিশেষ নজরে রেখেছেন।

কলকাতা 4U শারদ সম্মান

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক, 3জুলাই , কলকাতা :

হস্তশিল্প এবং চারুকলার ক্ষেত্রকে নতুন দিশা দেখতে এগিয়ে এলো কেন্দ্রীয় সরকারের অধীনস্থ সংস্থা MSME DI র কলকাতা শাখা। পশ্চিমবঙ্গের শিল্পীরা পেতে চলেছে তাদের শিল্পকর্মের যোগ্য সম্মান।
হস্তশিল্পের মাধ্যমে উপহার সামগ্রী, নকশাদার পোশাক, গহনা,পরিবেশ বান্ধব ব্যাগ এই চারটি বিষয়ের ওপর প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ২৩ জুলাই থেকে শুরু করে ১৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলবে নাম নথিভুক্তিকরণ পদ্ধতি।
প্রত্যেকটি বিভাগের সেরা ১০ জনকে দেওয়া হবে ট্রফি ও প্রশংসাপত্র। বিজয়ীদের শিল্পকর্ম নিয়ে হবে প্রদর্শনী ।

আবেদন ও বিশদে জানতে ক্লিক করুন:
www.msmedikol.gov.in
এছাড়া 8442884355এ যোগযোগ করতে পারেন।
এক সাংবাদিক সম্মেলনে তাদের এই অভিনব প্রয়াসের কথা জানালেন ডিরেক্টর অজয় ব্যানার্জি এবং ডেপুটি ডাইরেক্টর দেবব্রত মিত্র।

এন ডি এ সরকার অবৈধ
-বিশ্বনাথ চক্রবর্তী

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক,5 আগস্ট,কলকাতা: আজ কলকাতা প্রেস ক্লাবে এক সাংবাদিক সম্মেলন করে “ভারতের জনপ্রতিনিধি নির্বাচক নাগরিক সমাজ” । যেখানে প্রধান বক্তা ছিলেন সমাজসেবী বিশ্বনাথ চক্রবর্তী।
কেন্দ্রীয় সরকারের বর্তমান নীতির তিনি বিরোধিতা করেন। এছাড়া কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা তুলে নেওয়ার সমালোচনা তিনি করেন। তিনি বলেন, ই ভি এম যান্ত্রিকভাবে ত্রুটিপপূর্ণ, সেখানে প্রোগ্রামিং করা যায় । লোকসভা নির্বাচনের কিছু সময় আগে যখন বিভিন্ন রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন হয় তাতে মোদী সরকার পরাজিত হয়। কিন্তু কি করে লোকসভা নির্বাচনে তারা সংখ্যাগরিষ্ঠতা পান ? এটা ই ভি এম কারচুপি ছাড়া আর কিছু না।
তাদের থেকে অভিযোগ ওঠে কাশ্মীর এখন পুঁজিপতিদের হাতে চলে যাবে। অসমে এন আর সি নিয়ে সরব হয়ে বলেন, নাগরিকত্ব বিল মানুষের সার্বভৌমত্বে আঘাত হেনেছে। বিজেপি সরকার সম্পূর্ণ ব্যর্থ ও অবৈধ্য। দাবী করা হয়, তারা নির্বাচন কমিশনের কাছে গত লোকসভা নির্বাচন নিয়ে কয়েকটি প্রশ্ন করেন। কিন্তু কমিশন সেগুলির উত্তর দিতে ব্যর্থ হন। এদিন উপস্থিত ছিলেন ইমাদুল হক, অধ্যাপক ভাস্কর গুপ্ত, হেদায়েৎতুল্লাহ সিদ্দিকি সহ অন্যান্যরা।
সন্মেলন শেষে প্রেস ক্লাবের বাইরে অভিনব পদ্ধতিতে জম্মু-কাশ্মীরকে বিভাজন এবং ৩৭০ ধারা বিলোপের বিরোধীতা করেন তারা। উপস্থিত ছিলেন বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্য্য, শক্তিমান ঘোষ প্রমুখ।

https://youtu.be/jbIVpzGYSjo

শান্তি স্থাপনে উদ্যোগ

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক,19জুলাই,কলকাতা: তাহফুজ- ই- মসজিদ কমিটির উদ্যোগে প্রেস ক্লাব কলকাতায় এক সাংবাদিক সম্মেলনে অমিতাভ চক্রবর্তী, সমাজকর্মী, বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্য, প্রাক্তন মেয়র / কেএমসি, মোঃ সারফাত আব্বর কাকিনাড়ার হিংসার বিষয়ে বক্তৃতা করেন।
বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্য বলেন, রাজ্য রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করছিলেন । কাকিনাড়ার হিংসার প্রসঙ্গক্রমে তিনি বলেন, বাম সরকার কঠোরভাবে এই ধরনের পরিস্থিতি মোকাবেলা করেছে। সরকারকে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করা উচিত। যেসব মানুষ ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করেন তাদের সঙ্গ ত্যাগ করা উচিৎ
সারফাত বলেন, ১৯৬৬ সালে কাকিনাড়াতে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সংঘটিত হয়েছিল। কিন্তু সেটি একটি ঘন্টার মধ্যে নিয়ন্ত্রন করেছিল সরকার। কিন্তু  গত মে মাস থেকে কিভাবে এখনো কাকিনাড়াতে হিংসা সংগঠিত হচ্ছে? ১৭ জুলাই তারিখে আমরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে চিঠি পাঠালাম।
উপস্থিত বক্তাগন শান্তি বজায় রাখার জন্য অর্জুন সিং, এমপি এর সরাসরি হস্তক্ষেপ দাবি করেন।

 শান্তির জন্য কবিতা  

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক,10জুলাই,কলকাতা: বিশ্বে ১৬০ টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে বার্তা  ” শান্তির জন্য কবিতা “। সমগ্র বিশ্ব জুড়ে শান্তির বার্তা ছড়িয়ে দিতে ‘ বালুরঘাট দি হোপ্ ওয়েলফেয়ার সোসাইটি ‘ এবং ‘ উত্তরের রোববার ‘ এর যৌথ উদ্যোগে ২১শে জুন ও ২৩ শে জুন অনুষ্ঠিত হলো ২ দিনের কবিতা উৎসব ।

বিশ্বের সামগ্রিক অস্থির পরিস্থিতি মোকাবিলায় সাহিত্য সংস্কৃতির শুভশক্তি কীভাবে জগতে শান্তি ফেরানোর কাজে সাহায্য করতে পারে তাই নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা চলে। মূল আলোচনায় 

কোলকাতা থেকে সংগঠক-সাংবাদিক-কবি বরুণ চক্রবর্তী ( লালন গবেষক ), সম্পাদক-সংগঠক-কবি হরিশঙ্কর কুন্ডু, দুর্গাপুর থেকে ছিলেন দুই বাংলা থেকে প্রকাশিত সাহিত্য পত্রিকা  ‘উন্মেষ’ এর সম্পাদক  কবি নীহাররঞ্জন বিশ্বাস।

কথায় কবিতায় তাঁদের বলিষ্ঠ আলোচনা শান্তির সপক্ষে  অনন্যমাত্রা প্রকাশ পেয়েছিল ।

এই অনুষ্ঠানে ” উত্তরের রোববার “- এর পক্ষ থেকে এলাকার চারজন দুঃস্থ ও কৃতী ছাত্র-ছাত্রীদের যথাযথ সম্মাননা দেওয়া হয় ।

২০১৯ -এ কৃতী ও দুঃস্থ ছাত্র-ছাত্রী এদের মধ্যে সুস্মিতা মহন্ত , উত্তম মার্ডি,  খুশি গাইন ও ছোট মুর্মু কে এদিন বর্ণালী স্মৃতি স্মারক দিয়ে সম্মাননা জ্ঞাপন করা হয় ।

এদিন অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক নির্মল রায়, বালুরঘাট ললিতমোহন আদর্শ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অভিজিৎ মুখার্জী, কাটনা আদিবাসী  কে.এম.এস বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অপূর্ব সেন , রাজুয়া সুখী সুন্দরী বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিশ্বজিত ভট্টাচার্য, বালুরঘাট মহাবিদ্যালয়ে অধ্যাপক সমিত কুমার সাহা , কবি সঞ্জয় মৌলিক , সমাজসেবী স্বপন কুমার বিশ্বাস, বিশিষ্ট আইনজীবী-সংস্কৃতিপ্রেমী  সুধাংশু লাহা, কবি ইলা সূত্রধর,  কবি সূরজ দাশ প্রমুখ সমাজের বিশিষ্ট গুণীজন ।

এই উৎসবের অন্যতম আহ্বায়ক সংগঠক কবি বিশ্বনাথ লাহা বলেন, গোটা বিশ্ব জুড়ে কেমন এক অস্থির পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে, চারিদিকে শুধু হিংসা।এই সুন্দর পৃথিবীতে এ সব কাম্য নয়, তবু হচ্ছে।

সার্বিক সুন্দর মনোরম শান্তির পরিবেশে শান্তি সহাবস্থানে সকলেই মিলিত থাকতে চাই ।

উল্লেখ্য, মেক্সিকো থেকে ” ওয়ার্ল্ড  পোয়েট্রি ফেস্টিভ্যাল ” এর অনুপ্রেরণায় সারা বিশ্বে একুশে জুন থেকে এই কবিতা উৎসব চলছে। বিভিন্ন দেশের কবি সাহিত্যিক মানবিক মানুষজন উৎসবের আয়োজন করে বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য বিভিন্ন দাবি পেশ করবেন রাষ্ট্রসঙ্ঘের কাছে ।

” যুদ্ধ বর্জন করে  শান্তিকে আলিঙ্গন করো “

World  Poetry Festival  তাদেরই উদ্যোগে পালিত হচ্ছে বিশ্ব জুড়ে এই শান্তির জন্য কবিতা উৎসব  ।

৪৮ ঘন্টা অ্যাপ ক্যাব ধর্মঘট 

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক ,২৮ জুন, কলকাতা : অনলাইনে যারা গাড়ী বুকিং করে অভ্যস্ত, তাদের দুদিন এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যেতে কিছুটা বেগ পেতে হতে পারে । আগামী ১ ও ২ জুলাই পশ্চিমবঙ্গে অ্যাপ ক্যাব সার্ভিস বন্ধ রাখার সিদ্ধান্তের কথা আজ এক সাংবাদিক সম্মেলনে ঘোষনা করেন ওয়েস্ট বেঙ্গল অনলাইন ক্যাব অপারেটরস গিল্ড। তাদের দাবী;

অনলাইন সংস্থার মুনাফা কমিয়ে অপারেটরদের আয় বাড়াতে হবে, 

অকারণ আই ডি ব্লক করা যাবে না,

পুলিশি ঝঞ্ঝাট অকারণ চলবে না,

ঠিক ঠাক ভাবে পাওনা মেটাতে হবে।

এছাড়া এদের এই দাবিকে সমর্থন করে লাক্সারী ট্যাক্সি এসোসিয়েশন (প :বঙ্গ)ও । তারা দাবী করেন আয় ব্যয়ের মধ্যে সমতা রাখতে হবে,অবিলিম্বে পুলিশি অত্যাচার বন্ধ করতে হবে, পারমিট প্রদান প্রক্রিয়া সুষ্ঠ ভাবে চালু করতে হবে, এছাড়া আরোও অনেক দাবী।

তারা জানিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গে প্রায় 35 হাজার গাড়ী তাদের এই ধর্মঘটে সামিল হবে, এর মধ্যে রয়েছে সরকারি দপ্তরের গাড়ীগুলিও। বর্তমান এই সমস্যাগুলি তারা অনেক দিন ধরেই পরিবহন দপ্তরে জানিয়েও কোনো সুরাহা হয়নি, তাই অবিলম্বে মুখ্যমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ দাবী করা হয়। সাংবাদিক সন্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ইন্দ্রনীল ব্যানার্জি, পারমিতা ঘোষ, সৈকত পাল, পার্থ সারথি সেন সহ গিল্ডের অন্যান্য সদস্যরা ।

ক্ষোভে রোজভ্যালীর আমানতকারীরা

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক,২৬জুন,কলকাতাঃ ‘রোজভ্যালীর কেসে আমি বিচারকদের বলব, মৃত এজেন্ট ও আমানতকারী এবং স্বল্প আমানতকারীদের টাকা যেন আগে ফেরত দেওয়া হয়। ‘— সর্ব নিবেশক হল্লাবোল কল্যাণ সমিতির সাংবাদিক সন্মেলনে এভাবেই নিজের বক্তব্য শুরু করলেন রাজ্য বিজেপি মাইনরিটি সেলের শীর্ষ নেতৃত্ব এডভোকেট নাজিয়া ইলাহি খান। তিনি বলেন, দীর্ঘ ছ’মাস ধরে এই সংগঠনের সদস্যরা অনশন করছেন টাকা ফেরতের দাবিতে। কিন্তু  মুখ্যমন্ত্রী একদিন ও সেখানে যাবার প্রয়োজন মনে করলেন না। সংগঠনের সভাপতি ধনঞ্জয় চন্দ্রবংশী বলেন, মোদি সরকারের ওপরে আমাদের আস্থা আছে। কিন্তু  রাজ্যে এই সরকার থাকলে আমরা টাকা ফেরত পাবো না। বিজেপি নেতা গোপাল সরকার বলেন, রোজভ্যালীর সম্পত্তি ও টাকা ই ডি বাজেয়াপ্ত করেছে। কিন্তু  রাজ্য সরকারের অনুমতি না পাওয়ার ই ডি সে টাকা আমানতকারীদের ফেরত দিতে পারছে না। শাসক দলের যা অবস্থা, খুব তাড়াতাড়ি এটি পড়ে যাবে। তখনই এই টাকা সবাই ফেরত পাবে।

https://youtu.be/jD3y5DkR-L8

খাদ্য মন্ত্রীর সাথে মিটিং



শুভাবরি ওয়েবডেস্ক,17জুন, কলকাতা : Bengal Fair Price Shop Dealers welfare Association এক সাংবাদিক সম্মেলনে ফেয়ার প্রাইস শপের নতুন নিয়ম প্রণয়নের বিরোধিতা করেন । সংগঠনের সভাপতি মিহির দাস বলেন, ” পি ও এস ব্যবস্থার সাথে আধার সংযুক্তিকরণ করলে সমস্যা হবে। কারণ ডিজিটাল কার্ডে অনেক বানান ও ঠিকানা ভুল রয়েছে। তাই আধার সংযুক্তিতেও সমস্যা হবে। তিনি যোগ করেন, 2016 সালে বন্ধ হয়ে যাওয়া হ্যান্ডেলিং লস ব্যবস্থা পুনরায় শুরু করতে হবে। কুইন্টাল প্রতী 250 টাকা দিতে হবে, মাসিক 50 হাজার টাকা দোকান প্রতি অনুদান দিতে হবে। এরকম অনেক দাবী নিয়ে আগামী 27 জুন খাদ্যমন্ত্রীর সাথে সব রেশন ডিলারদের সংগঠনের মিটিং হওয়ার কথা আছে । এর সঠিক সমাধান না হলে প্রায় 22200 রেশন দোকান মালিক ও কর্মচারি বিপদে পড়বে বলে দাবী করেন মিহির বাবু।

তারকেশ্বরে অঞ্চল দখল করলো বিজেপি –

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক,11জুন,পলাশ পাত্র, হুগলী,তারকেশ্বরঃ- হুগলী জেলার আরামবাগ লোকসভা  কেন্দ্রের অন্তঃগত তারকেশ্বর ব্লকের দুটি অঞ্চল দখল করে নিলেন বিজেপি নেতা মুকুল রায়। মঙ্গলবার রাজ্য বিজেপি র নেতৃত্বে হুগলী জেলার তারকেশ্বর ব্লকের চাঁপাডাঙা অঞ্চল ও তালপুর অঞ্চলের সমস্ত তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মীবৃন্দ বিজেপি তে যোগদান করে মুকুল রায়ের হাত ধরে। মুকুল রায়ের বক্তব্য লোকসভা নির্বাচনে প্রায় ৪০ টি  ইভিএম গণনা করতে না দিয়ে   আমাদের প্রার্থী তপন রায় কে জোর করে হারিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। তাই তার প্রতিবাদে এলাকার সমস্ত মানুষ পরাজিত প্রার্থী তপন রায়ের উপস্থিতিতে এদিন বিজেপিতে যোগ দিয়েছে। এছাড়াও এদিন টিভি সিরিয়াল খ্যাত অভিনেতা প্রদীপ ধরও বিজেপিতে যোগদান করেন মুকুল রায়ের হাত ধরে।

NCC, WB Chapter



Shubhabori Webdesk, 25 may, kolkata: It is late but good start by National Christan Council (NCC) . The organization was formed in 2012 by Dr. Sam Paul for the welfare for all Christian communities. One 25th may 2019 NCC has started it’s WEST BENGAL unit. During a press meet Dr. Paul claimed that about 5000 FCRA fund have been cancelled by BJP govt. with an allegation that Christians are converting the non Christians . This is not true , he said. He welcome the new govt with new vision of secular India.
He also appealed to the Chief Minister of Bengal to allot land for Christian grave yard . To be mentioned here Rev. Dr. Emmnuel Singh, President WB chapter ,also present during the press meet.

আমরা পরিবর্তন চাই

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক,6 এপ্রিল , কলকাতা: পরিবেশ নিয়ে বহুদিন আন্দোলন করেছে সবুজ মঞ্চ – নব দত্ত, গীতানাথ গাঙ্গুলীরা। এবার পাশে পেলেন Concern for calcutta এবং WWF.
পরিবেশের পক্ষে ভোট চাইতে কলকাতা প্রেস ক্লাবে উপস্থিত ছিলেন সবুজ মঞ্চের নব দত্ত,গীতানাথ গাঙ্গুলী, Concern for Calcutta র নারায়ন জৈন, WWF র শাশ্বতী সেন।
স্কুল স্তরে প্লাস্টিক বিরোধী সচেতনতা যেমন চন্দননগর -উত্তর পরা ভালো ফল করেছে।তেমনি অন্যকথাও তেমন হয়নি। তবে এবার সময় এসেছে। ভোটাররা ভোটপ্রার্থীদের কাছে জন্তে চাইতেই পরেন , পরিবেশ রক্ষায় তারা কি কর্মসূচী নেবেন। নব দত্ত বলেন ওয়ন্তার ইমেজ এবং কারুকৃতের সহায়তায় কলকাতা শহরে বড়ো হোর্ডিং লাগানো হবে। থাকবে কয়েক হাজার ফ্লেক্স। পরিবেশ সম্বন্ধীয় পাঁচটি বিষয়। শিরোনাম-
” আমরা পরিবর্তন চাই”
নারায়ন জৈন এক চমকপ্রদক তথ্য দেন :
কানাডাতে মানুষ প্রতি গাছ রয়েছে 8953টি, আমেরিকায় 716টি, আর ভারতে রয়েছে 28টি। কপালে চিন্তার ভাঁজ আমাদের

ফ্রন্টের সাথে লোকতান্ত্রিক জনতা দল

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক ,7এপ্রিল,কলকাতা: সমস্ত রকম জল্পনার অবসান ঘটিয়ে লোকতান্ত্রিক জনতা দল পশ্চিমবঙ্গ শাখা আসন্ন নির্বাচনের আগে তাদের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে সংবাদ মধ্যমকে জানালো ,তাদের দল ও সমর্থকরা বামফ্রন্ট মনোনীত সমস্ত প্রার্থীকেই সমর্থন করবে । যদিও এর কিছুদিন আগে তাদের নতুন কমিটিকে সামনে নিয়ে বলেছিলেন যে আগামী দিনে একটি অবিজেপী সরকারকেই তারা সমর্থন করবে । এই বিগপ্তী মাধ্যমে তারা এর খোলসা করলেন।

আন্দোলনের নতুন রূপরেখা

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক , ২৯ মার্চ, কলকাতা ঃঃ

দুদিন যেতে না যেতেই অনশনরত মাদ্রাসা চাকরি প্রার্থীদের একপ্রকার বলপ্রয়োগ করে তুলে দিল প্রশাসন, এমনটাই করলেন আজ সাংবাদিক সম্মেলনে দাবী করলেন মাদ্রাসার চাকরির দাবিদার সদস্যরা । আজকের সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন মাইনরিটি যুব ফেডারেশনের সম্পাদক কামরুজ্জামান সাহেব, ছিলেন বাংলা সংস্কৃতিক মঞ্চের প্রতিনিধিও । সবাই একসাথে বলপ্রয়োগ করে অনশনের মত গণতান্ত্রিক অধিকার থেকে বঞ্চিত করার বিপক্ষেই সওয়াল করলেন । তবে বক্তব্যের মাঝ থেকে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে সেরকম কোনো ক্ষোভ উঠে আসেনি।
তারা দাবী করেন মাদ্রাসা কমিশনের চেয়ারম্যানকে তাঁকে পদত্যাগ করতে হবে এবং সুপ্রিম কোর্টের রায়কে অবিলম্বে কার্যকরী করতে হবে।
তবে কামরুজ্জামানের এবং অন্যান্য অমুসলমান সংগঠনের সমর্থনের পাশাপাশি আগামীকাল কলকাতা প্রেস ক্লাবের সামনে সমাবেশ ও 3 তারিখ ডাকা মিছিলে এই আন্দোলন নতুন মাত্রা পাবে বলে মনে করা হচ্ছে।

শিবাজী ঘরে ফেরে নাই



শুভাবরি ওয়েবডেস্ক, ২৬মার্চ, কলকাতা: বি টেক পাশ করে বিভিন্ন প্রতিযোগীতামূলক পরীক্ষার জন্য বেলঘরিয়ার একটি মেসে প্রস্তুতি নিচ্ছিল বনগ্রাম পশ্চিম বর্ধমানের শিবাজী ব্যানার্জি । বরাবরই সে থাকত চুপচাপ । জানালেন তার দাদা জয়দীপ ব্যানার্জি।

গত 17 ফেব্রুয়ারি রাত 10টা থেকে সে নিখোঁজ। 18ফেব্রুয়ারি নিমতা থানায় জি ডি করা হয়। কিন্তু এখনও পর্যন্ত তার কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি।
এখন এটাই দেখার লোকসভা ভোটার আগে না পরে কখন ফেরে শিবাজী।

সাহস জোগাতে শঙ্কু

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক, ১৯মার্চ, দেবাঞ্জন দাস, কলকাতাঃঃ এস এস সি তে চাকরি প্রার্থীরা অনেকদিন ধরেই কলকাতার ধর্মতলায় অনশনে বসেছেন। বিভিন্ন সময় বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতারা এসেছেন । গত কাল তাদের সাথে দেখা করতে এবং অনশনে সামিল হতে আসেন বিজেপি নেতা শঙ্কুদেব পণ্ডা ।

http://shubhabori.co.in/inshot_20190319_094148362/

প্রাকৃতিক নিয়মে চুন তৈরি লাভের মুখ দেখতে চান তামলি সম্প্রদায়ের সদস্যরা

শুভাবরি ওয়েবডেস্ক, ৬ মার্চ,( পল মৈত্র, দক্ষিণ দিনাজপুর): দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার গঙ্গারামপুর শহরের ১নং ওয়ার্ডের কাদিঘাট এলাকায় দীর্ঘ ১০০ বছরের বেশি সময় ধরে প্রাকৃতিক উপায়ে ঝিনুক থেকে চুন প্রস্তুত করছেন এখানকার তামলি সম্প্রদায়ের ৫ পরিবারের সদস্যরা। গঙ্গারামপুর – মালদা জাতীয় সড়কের কাদিঘাট এলাকায় সড়ক দিয়ে যাওয়ার সময় রাস্তার ধারে দেখা যায় বড় বড় উনুনে ঝিনুক পুড়িয়ে চুন প্রস্তুত চলছে।

এই চুন তৈরি করার কাজটিও বেশ খাটুনির, ২৪ ঘন্টা ধরে বড় বড় উনুনে ঝিনুক পোড়ানো হয়, এরপর চুন তৈরি করার শেষে তাকে ছাঁকনি দিয়ে ছেঁকে আবার তাকে জল দিয়ে রেখে তিন ঘন্টা ঘোলাতে হয়, তারপর কাপড়ে ছেঁকে রাখার পর সেটি যখন আস্তে আস্তে জমতে শুরু করে।

এই বিষয়ে সঞ্জয় তামলি( চুন প্রস্তুতকারী ) জানান, সরকারি নিয়ম অনুযায়ী চুনের উপর ঋণ থাকা সত্ত্বেও আমরা কোন সাহায্য পাইনি, পাশাপাশি আজো অব্দি আমরা কোন রকম সরকারি সহযোগিতা পাননি। তামলি সম্প্রদায়ের ৫ পরিবারের সদস্যরা ১৫-২০ হাজার টাকা আয় করলেও গ্রাম থেকে ঝিনুক সংগ্রহ করতে যে পরিমাণ টাকা খরচ হয় তাতেই তাদের প্রায় সব চলে যায়। কোন রকমে টেনেটুনে সংসার চালাতে হয় তাদের। গ্রাম থেকে ২০০ টাকা করে ঝিনুক কিনে বাড়িতে নিয়ে এসে চুন প্রস্তুত করে ৩ টাকা প্যাকেট হিসেবে বিক্রি হয়। এই চুন শুধুমাত্র পানে খাওয়ার জন্য বিক্রি হয়। কিন্তু বর্তমানে পাথরের চুন বাজারে ঢুকে যাওয়ায় এদের ব্যবসা মার খেয়েছে।
সঞ্জয় তামলি বলেন, সরকার যদি আমাদের কথা চিন্তা করে একটিবার সাহায্য করেন তাহলে খুব উপকৃত হবো। বাপ-ঠাকুরদার চলে আসা তামলি সম্প্রদায়ের প্রাকৃতিক নিয়মে চুনপ্রস্তুত ব্যবসাকে টিকিয়ে রাখতে সরকারি সাহায্যের করুন আর্জি জানান ৫ টি পরিবারের সদস্যরা।

নির্বাচনী কর্মসুচীতে আসুক-সীমান্তের দাবি

ছবি দেবাঞ্জন দাস

শুভাবরি ওয়েবডেক্স ৫ফেব্রুয়ারি, কলকাতা:আজ কলকাতা প্রেস ক্লাবে মানবাধিকার সংগঠন মাসুম এবং আমরা সীমান্তবাসী এক যৌথ আলোচনা সভায় বাংলাদেশ সীমান্তে বসবাসকারী মানুষের সমস্যা নিয়ে পর্যালোচনা করেন। উপস্থিত ছিলেন সিপিএম, সিপিআই(এম এল) এবং বিজেপির নেতাও। যিনি সমস্ত বিষয়টি একসূত্রে বেধে দীর্ঘদিন ধরে লড়াই করছেন সীমান্তের দুখী মানুষের জন্য, সেই কিরিটি রায় বলেন, ১৭ তম লোকসভা নির্বাচনে দলীয় ইশতেহারে প্রতিটি রাজনৈতিক দলের উচিৎ সীমান্তবাসী মানুষের সমস্যা তুলে ধরা। কারণ, এই দেশের নাগরিক হয়েও তারা সমস্ত প্রকার সুবিধা থেকে বঞ্চিত। তিনি দাবি করেন, সরকারি নিয়ম না মেনে বি এস এফ নিজেদের পছন্দ মতো জায়গায় কাটা তার দেবার কথা চিন্তা করছে।

ছবি দেবাঞ্জন দাস

মাসুম এবং আমরা সীমান্তবাসী দাবি করেছে;

~বি এস এফ প্রকৃত সীমান্তে ফিরে যাক।
~বি এস এফের নির্যাতন এবং বেআইনী হত্যা বন্ধ হোক।
~কাঁটা তারের বেড়ার ওপারে থাকা ভারতীয় নাগরিকদের যাতায়াত সুগম করা হোক… ইত্যাদি মোট ১০ টি দাবি।
আলোচনা শেষে তারা প্রতিকৃত কাঁটা তারের বেড়ার মধ্যে হেটে মেয়ো রোডের গান্ধী মুর্তির পাদদেশে ৩০ মিনিট অবস্থান করেন শতাধিক সীমান্তবাসী।

অবশেষে আরও একটি ফ্রন্ট

শুভাবরি ওয়েবডেক্স, ২৬ ফেব্রুয়ারি, কলকাতা: ২০১৮ সালের ১৬ ই অক্টোবর তৈরি গনতান্ত্রিক ঐক্যজোট এক সাংবাদিক সম্মেলনে তাদের আসন্ন লোকসভা ভোটের জন্য জোট সমর্থিত প্রার্থী মোট ১৩ টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন সেকথা ঘোষণা করেন। এদিন সম্মেলনে জোটের আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. নুরুল হক ভোটের ইশতেহার প্রকাশ করে প্রাথমিক তালিকা প্রকাশ করেন।
জঙ্গীপুর কেন্দ্রে জোট প্রার্থি ড. এস কিউ আর ইলিয়াস
তমলুকে শেক হামিদুল হোসেন
মথুরাপুর তপশিলি কেন্দ্রে ডাঃ রাজেন্দ্র প্রসাদ নস্কর
কৃষ্ণনগরে আলহাজ্ব ডাঃ শাজাহান মল্লিক
যাদবপুরে অধ্যাপক শেক আসগার আলি
ডায়মন্ডহারবারে আফতাব উদ্দিন হালদার
দার্জিলিং এ মোঃ ওয়াজেদ আলি।
বাকি বসিরহাট, উলুবেরিয়া, জয়নগর, মালদা উঃ, কোচবিহার, মুর্শিদাবাদ এর প্রাথি তারা পরে ঘোষণা করবেন বলে জানান।
প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ” অভিন্ন এবং অন্যান্য দল যারা এই জোটকে নিয়ে সম্মিলিতভাবে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করতে চায়, জোট তাদের সাথে একসাথে নির্বাচনে লড়তে আগ্রহী, অন্যথায় জোট পৃথক ভাবে আসন গুলিতে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করবে।”
অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ওয়েলফেয়ার পার্টি অফ ইন্ডিয়ার কেন্দ্রীয় সভাপতি ড. এস কিউ আর ইলিয়াস ও বহুজন মুক্তি পারটির কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক মান্যবর ভাঞ্জিভাই রাঠোর সহ অন্যান্য নেতৃত্ব।

শ্রদ্ধা জানাতে

শুভাবরি ওয়েবডেক্স,১৭ ফেব্রুয়ারি, কলকাতা: জম্মু ও কাশ্মীরের পুলওয়ামায় নিহত জওয়ানদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে আজ ধর্মতলা থেকে মেয়োরোডের গান্ধী মূর্তির পাদদেশ পর্যন্ত মোমবাতি মিছিল করে কারি আহমেদ ফাউন্ডেশন ।

http://shubhabori.co.in/vid-20190217-wa0004/

উপস্থিত ছিলেন সংস্থার ডিরেক্টর জাইদ আনোয়ার মহম্মদ, ড. অরুঞ্জতী ভিক্ষু ,এছাড়াও ছিলেন বহু সমাজসেবী ।জাতীয় সংগীত এবং বিভিন্ন দেশাত্মবোধক গানের মধ্য দিয়ে সবাই নিজ নিজ বক্তব্য রাখেন ।এই হামলার জন্য যারা দায়ী তাদের শাস্তির দাবিও তারা জানান ।

বকেয়া বেতনের জন্য অবস্থান বিক্ষোভ

শুভাবরি ওয়েবডেক্স,৮ ফেব্রুয়ারী, কলকাতাঃ গত পাঁচ মাস বেতন বকেয়া থাকার জন্য বিক্ষোভের পথ বেছে নিলেন বিএসএনএল ন্যাশনালিস্ট ঠিকা ওয়ারকার্স কংগ্রেস ( আই এন টি টি ইউ সি)। আজ নিয়ে ১২ দিনে পড়লো তাদের ধর্না ।

বি এস এন এল র কলকাতা টেলিফোনস্ এর রানিকুঠি শাখায় ধর্নায় বসেন প্রায় ৫০০ জন সদস্য। সংস্থার ডিভিশনাল সম্পাদক অমিত কুমার মন্ডল জানান, “গত পাঁচ মাস অস্থায়ী ঠিকা কর্মচারীরা তাদের বেতন পাচ্ছেন না। কলকাতার প্রায় ৫০০০ এবং পশ্চিমবঙ্গ সার্কেলের প্রায় ৫০০০ সদস্য রয়েছেন”।

তিনি জানান যে, “সাধারণ মানুষের অসুবিধার কথা ভেবে আমাদের কিছু সদস্য কাজে যোগ দিয়েছেন। আমাদের চেয়ারম্যান সাংসদ সৌগত রায় মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় কে চিঠি দিয়ে আমাদের এই অবস্থার কথা জানান এবং মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী আমাদের সমস্যার কথা চিঠিতে কেন্দ্রীয় সরকারের টেলিকম বিভাগে বিস্তারিত জানান। আশা করি কেন্দ্রীয় সরকার আমাদের নেত্রীর কথায় সারা দেবেন”।

তবে সমস্যার সমাধান না পেলে তারা ভবিষ্যতে বৃহত্তর আন্দোলনের পথ বেছে নেবেন বলে হুঁশিয়ারি দেন ।

রবীন্দ্রতীর্থের বিকল্পের দাবী।

শুভাবরি ওয়েবডেক্স, 6 ফেব্রুয়ারী, কলকাতা: রবীন্দ্রতীর্থ, রাজারহাট অবৈধ ভাবে দখল করা হয়েছে বলে দাবী করছেন ক্যানিং এর সুখেন্দু মন্ডল।তিনি আরোও দাবী করেন, জমিটির মালিকানা তার।রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী এবং বর্তমান পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের কাছে দরবার করা ছাড়াও তিনি হাইকোর্টও আবেদন করে ছিলেন যাতে জমিটির বিকল্প অথবা আর্থিক অনুদান পাওয়া যায় । কিন্তু ২০১৩ থেকে ২০১৮ এই দৈর্ঘ্য সময়ে কোন প্রতিকার না পেয়ে কলকাতার গান্ধী মূর্তির পাদদেশে আজ ধর্নায় বসেন।সরাসরি শোনা যাক সুখেন্দু বাবুর মুখে ঘটনার বিস্তারিত

https://youtu.be/XtK8r6S9_OQ

নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে সবসময় রুখে দাঁড়িয়েছে পুরুষ। কিন্তু নারীকে নিজের সম্মান রক্ষা করার শিক্ষা দিয়েছে খুবই কম পুরুষ। এম এ আলি বিনামূল্যে মহিলাদের জন্য ক্যারাটে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেছেন। নারীদের ক্যারাটে প্রশিক্ষক, আমাদের ক্যামেরার সামনে এক্সক্লুসিভ এম এ আলি সাহেব :

ভোটের প্রস্তুতি

ওয়েব ডেস্ক, 30ডিসেম্বর: গঠিত হল জনতা পরিবার মঞ্চ। কলকাতা প্রেস ক্লাবে মঞ্চের আহ্বায়ক কীর্তিমান ঘোষ এই মঞ্চ সন্মন্ধে বলেন যে লোকনায়ক জয়প্রকাশ নারায়নের সম মনোভাবাপন্ন সমস্ত দল ও ব্যক্তি এই মঞ্চে স্বাগত। আগামী 6 ডিসেম্বর তারা বাবরি মসজিদ ধ্বংসের দিনে লোকনায়ক জয়প্রকাশ নারায়নের মুর্তির পাদদেশে বেলা 12-4 অবধি অবস্থান করবেন।
এই মঞ্চে রয়েছেন JD/S, RISP, RJD, SP/I এবং lJD দলগুলো।