ওয়েব ডেস্ক; ১৪ মে: ডিকেএমএস বিএমএসটি ফাউন্ডেশন ইন্ডিয়া রোটারি ক্লাব অফ ক্যালকাটা ভিজনারিজ (RI Dist 3291) এর সঙ্গে সহযোগিতায় রক্তের স্টেম সেল প্রতিস্থাপনের তাৎপর্য সম্পর্কে সচেতনতা বাড়াতে এবং তরুন ব্যক্তিদের সম্ভাব্য জীবন রক্ষাকারী হিসেবে নিবন্ধিত হতে অনুপ্রাণিত করার জন্য সংস্থাটি বুধবারে (৮ মে) কলকাতার বারাসাতের অ্যাডামাস বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশ্ব থ্যালাসেমিয়া দিবসের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে একটি সেমিনারের আয়োজন করেছে। ডিকেএমএস বিএমএসটি এর দ্বারা E-YUVA (BIRAC-র দ্বারা সমর্থিত) কেন্দ্রের সহযোগিতায় একটি স্টেম সেল দাতার নিবন্ধন অভিযানেরও আয়োজন করা হয় যেখানে ২৫০ -রও বেশি ছাত্র-ছাত্রী সম্ভাব্য স্টেম সেল দাতা হিসাবে নিবন্ধিত হয়েছে

আমাদের দেশে থ্যালাসেমিয়া ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ছে এবং প্রতি বছর ১০০০০ এরও বেশি শিশু থ্যালাসেমিয়া নিয়ে জন্মগ্রহণ করে। থ্যালাসেমিয়া হল একটি জেনেটিক অবস্থা যেখানে প্রোটিন হিমোল্গবিনের ত্রুটি রক্তে অক্সিজেনের পরিবহন ক্ষমতা হ্রাস করে। এই রোগে ভুগছেন এমন রোগীদের স্টেম সেল প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে আদর্শভাবেই অল্প বয়সেই নিরাময় করা যায়। তাই শিশুদের মধ্যে এই প্রতিস্থাপনের প্রয়োজনীয়তা অত্যন্ত বেশি।

যদিও স্টেম সেল প্রতিস্থাপনের প্রয়োজন আছ এমন রোগীদের মধ্যে মাত্র ৩০ শতাংশ তাদের পরিবারের মধ্যে এইচএলএ (হিউম্যান লিউকোসাইট অ্যান্টিজেন টিস্যু টাইপ) মিলিত দাতা খুঁজে পেতে পারেন। ৭০ শতাংশেরও বেশি রোগী সম্পর্কহীন দাতাদের সন্ধান করছেন, কিন্তু সচেতনতার অভাবের কারণে ভারতীয় জনসংখ্যার মাত্র ০.০৯ শতাংশ সম্ভাব্য স্টেম সেল দাতা হিসেবে নিবন্ধিত। জাতিগত মিলনের তাৎপর্যের পরিপ্রক্ষিতে, ভারতীয় রোগীদের, অন্যান্য ভারতীয়দের মধ্যে দাতা খুঁজে পাওয়ার সম্ভাবনা উল্লেখযোগ্যভাবে বেশি।

ডিকেএমএস বিএমএসটি থ্যালাসেমিয়া প্রোগ্রামের বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে, ডিকেএমএস বিএমএসটি -ফাউন্ডেশন ইন্ডিয়ার সিইও প্যাট্রিক পল বলেছেন, “ব্লাড-ক্যান্সার ও অন্যান্য ব্লাড ডিসঅর্ডারে সাহায্য করা আমাদের লক্ষ্য। যেমন ভারতে থ্যালাসেমিয়া রোগী, যাদের জন্য আমরা ডিকেএমএস বিএমএসটি থ্যালাসেমিয়া প্রোগ্রামের আয়োজন করেছি। এই প্রোগ্রামের অধীনে ডিকেএমএস বিএমএসটি স্থানীয় এনজিও এবং ট্রান্সপ্ল্যান্টেশন ক্লিনিকের সঙ্গে সহযোগিতা করে শিবিরের আয়োজন করে যেখানে শিশু থ্যালাসেমিয়া রোগী এবং তাদের পরিবারগুলো এইচএলএ টাইপিঙের জন্য বুকাল সোয়াব নমুনা দেওয়ার জন্য অনেক দুর থেকে, কখনও কখনও ভারতের খুব প্রত্যন্ত জায়গা থেকে এসে উপস্থিত হন। ক্যাম্পের নমুনাগুলো জার্মানির বাইরে অবস্থিত ডিকেএমএস গবেষণাগারে বিশ্লেষণ করা হয় এবং এর ক্লিনিকাল ম্যাচিং রিপোর্ট প্রদান করা হয়। যেসব ক্ষেত্রে কোনো অসুস্থ শিশুর জন্য কোনো মিলিত ভাইবোন নেই, সেক্ষেত্রে আমরা রোগীদের জন্য সম্পর্কহীন দাতা অনুসন্ধান করতে সাহায্য করি।”

“আমাদের উদ্দেশ্য রোটারি ডিস্ট্রিক্ট ৩২৯১,-এর সহযোগিতায় সমাজের বিভিন্ন শ্রেণির মধ্যে ব্লাড স্টেম সেল দান সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি করা” তিনি যোগ করেছেন।

রোটারি ক্লাব অফ ক্যালকাটা ভিজনারিজের সভাপতি আরটিএন দীপক আগরওয়াল বলেছেন, “এরকম একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সচেতনতার অভাব দেখে অবাক হয়েছিলাম। আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে এটির সময়ের প্রয়োজন। আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি যে যদি আমরা ভিতরে স্ফুলিঙ্গ জ্বালাতে পারি, তখন আমরা নিজেদের বাইরে বেরিয়ে দেখতে পারি এবং কাউকে জীবনে দ্বিতীয় সুযোগ দিতে পারি। জীবন বাঁচানের চেয়ে অসাধারণ আর কিছুই হতে পারে না। একটি সংগঠন হিসেবে, আমাদের গর্ব হয় যে আমরা এমন একটি উদ্যোগের অংশ যা একজন ব্লাড স্টেম সেল ডোনার হিসাবে নিবন্ধিত হওয়ার গুরুত্ব এবং রোগীর জীবনে এর গভীর প্রভাব সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি করে।“

রোটারি ক্লাব অফ ক্যালকাটা ভিজনারিজের ইভেন্ট চেয়ার আরটিএন অজয় জাজোডিয়া বলেন, “আমি যুব সমাজকে বিশেষভাবে অনুরোধ করছি, জীবন বাঁচাতে রক্তের স্টেম সেলের গুরুত্ব বুঝুন এবং এগিয়ে আসুন এবং নিজেদের সম্ভাব্য দাতা হিসেবে নিবন্ধিত করুন। সর্বোপরি তারা মশাল নিয়ে যাবে দীর্ঘ পথ।”

“আমরা রোটারি ডিস্ট্রিক্ট ৩২৯১ এবং এর নিবেদিত সদস্যদের এই রেজিস্ট্রেশন ড্রাইভের সমন্বয়ে তাদের অমূল্য সহায়তার জন্য আমাদের আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে চাই। ডিকেএমএস বিএমএসটি রোটারির মত সম্মানিত ক্লাবগুলোর সঙ্গে সহযোগিতায় একাধিক সচেতনতা এবং নিবন্ধকরণ প্রচারাভিযান পরিচালনা করতে নিবেদিত রয়েছে যেখানে নতুন প্রজন্মকে এমন কাজে যুক্ত করতে গুরুত্ব প্রদান করা হয়। নিবন্ধন প্রক্রিয়ায় তাদের সক্রিয় অংশগ্রহণ, এমন রোগীদের জন্য তাদের উপযুক্ত মিল থাকা দাতা খুঁজে পাওয়ার সম্ভবনা বৃদ্ধি করে, যাদের সত্যিই এর খুব প্রয়োজন” জানিয়েছেন ডিকেএমএস বিএমএসটি -এর সিইও প্যাট্রিক পল।

একজন সম্ভাব্য স্টেম সেল দাতা হিসেবে নিবন্ধিত হতে আপনাকে একজন সুস্থ ভারতীয় প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তি হতে হবে যার বয়সসীমা ১৮ থেকে ৫৫। আপনি যখন নিবন্ধিত হতে প্রস্তুত, আপনাকে শুধুমাত্র একটি সম্মতি পত্র সম্পূর্ণ করতে হবে এবং টিস্যু সংগ্রহ করার জন্য আপনার গালের ভেতরে সোয়াব করার অনুমতি দিতে হবে। এরপর আপনার টিস্যুর নমুনা আপনার এইচএলএ (হিউম্যান লিউকোসাইট এন্টিজেন) বিশ্লেষণের জন্য গবেষণাগারে পাঠানো হবে এবং ম্যাচিং স্টেম সেল ডোনার-এর আন্তর্জাতিক সার্চ প্ল্যাটফর্মে তালিকাভুক্ত করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *